রাত ৪:৪৯, শনিবার, ১৯শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / চার সেমি ফাইনালিষ্ট এখন কক্সবাজারে
বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল
চার সেমি ফাইনালিষ্ট এখন কক্সবাজারে
অক্টোবর ৭, ২০১৮



স্পোর্টস রিপোর্টার, কক্সবাজার থেকে

বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক ফুটবল টূর্নামেন্টের গ্রুপ পর্ব শেষে সেমি ফাইনাল খেলতে কক্সবাজারে এসে পৌঁছেছে স্বাগতিক বাংলাদেশসহ চার সেমি ফাইনালিষ্ট দল। আজ রবিবার বিকাল সাড়ে তিনটায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে জামাল ভূইয়ার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ফুটবল দল এসে কক্সবাজার বিমানবন্দরে নামে। জেলা ক্রীড়া সংস্থা (ডিএসএ) ও জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (ডিএফএ) কর্মকর্তারা বিমান বন্দরে তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

এরপর একে একে ফিলিস্তিন, তাজিকিন্তান ও ফিলিপাইন জাতীয় ফুটবল দলও পর্যটন নগরীতে পৌঁছায়। তাদেরকে জানানো হয় উষ্ণ ফুলেল শুভেচ্ছা। বিমান বন্দর থেকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে দলগুলোকে টিম হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। বিকেলে চারটি দলই ছিল বিশ্রামে। আগামীকাল সকালে অনুশীলনে মাঠে নামবে ফাইনালের যাওয়ার জন্য মুখিয়ে থাকা চার দল। আগামী ৯ অক্টোবর প্রথম সেমি ফাইনালে তাকিকিস্তান মুখোমুখি হবে ফিলিপাইনের। আর পরের দিন স্বাগতিকরা লড়বে ফিলিস্তিনির বিরুদ্ধে।

বাংলাদেশ জাতীয় দলে বর্তমানে কক্সবাজারের চারজন ফুটবলার রয়েছেন। তারা হলেন, তৌহিদুল ইসলাম সবুজ, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, আনিসুর রহমান জিকু ও সুশান্ত ত্রিপুরা। নিজ ভূমিতে নেমে চকোরিয়ার সন্তান ইব্রাহিম বলেন, ‘আগেও বহুবার কক্সবাজারে এসেছি। তবে এবারের আসার অনুভূতি অন্যরকম। জাতীয় দলের হয়ে খেলতে নিজের মাঠে এসেছি। আমি চেষ্টা করবো নিজের সর্বোচ্চটা দিতে এবং দলকে জেতাতে।’ তৌহিদুল ইসলাম সবুজ বলেন, ‘গ্রুপ পর্বে আমরা ভালো খেলে সেমিফাইনালে উঠে কক্সবাজারে এসেছি। এ মাঠে খেলার ভালো অভিজ্ঞতা রয়েছে আমার। আশা করছি নিজেদের মাঠে ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ম্যাচটি আমরা জিতবো।’

এদিকে কক্সবাজারে এসে উঞ্চ অভ্যর্থনা পেয়ে মুগ্ধ বিদেশী কোচ ও খেলোয়াড়রা। সমুদ্র নগরীতে পা রেখে ফিলিপাইন দলের সহকারী কোচ মংরি চো বলেন, ‘বাংলাদেশের আমন্ত্রনে খেলতে এসে আমাদের বেশ ভালই লাগছে। এখানকার মানুষ খুব ভালো। আমাদের খুব ভালো লাগছে।’ কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ বড়ুয়া অপু বলেন, ‘আগামী ৯ ও ১০ অক্টোবরের আর্ন্তজাতিক ফুটবল ম্যাচ নিয়ে কক্সবাজারের ক্রীড়ামোদিরা উৎফুল্ল। আমরা প্রতিটি দলের জন্য স্থানীয় লিয়াজো অফিসার নিযুক্ত করেছি। দলকে আনা নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক এই ম্যাচ দুটি আয়োজনের জন্য এখন সম্পুর্ন প্রস্তুত বীর শ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম। প্রথমবারের মত আয়োজিত আন্তর্জাতিক এই টুর্নামেন্ট নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার মধ্যেই সম্পন্ন হবে বলে আশা করছি।’ ম্যাচ আয়োজনের জন্য স্টেডিয়াম এলাকা সহ গোটা শহরেই বাড়তি নিরাপত্তার উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :