বিকাল ৪:২০, শুক্রবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / গ্র্যান্ডস্লাম জেতা আমার জন্য দারুণ অর্জন: না‌ওমি ‌ওসাকা
গ্র্যান্ডস্লাম জেতা আমার জন্য দারুণ অর্জন: না‌ওমি ‌ওসাকা
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮



ইউএস ওপেনের চমক নাওমি ওসাকা। মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্টে এসে জিতলেন ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ডস্লাম। ফাইনালে টেনিসের জীবন্ত কিংবদন্তি আমেরিকান সেরেনা উইলিয়ামসকে পরাজিত করে জাপানের ইতিহাসে প্রথম মেজর কোন টুর্নামেন্ট জয়ের বিরল এক রেকর্ড গড়েন নাওমি ওসাকা। কিন্তু ইউএস ওপেনের চ্যাম্পিয়ন ওসাকার চেয়েও আলোচনায় ফাইনালে হেরে যাওয়া সেরেনা। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে কোড অব কন্ডাক্ট ভেঙ্গে, চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস রামোসের সঙ্গে হাত না মিলিয়ে বিতর্কের জন্ম দিয়ে বিশ্ব গণমাধ্যম দখল করে নেন উইলিয়ামস পরিবারের ছোট মেয়েটি। তারপরও সেরেনার এমন আচরণে কোন আক্ষেপ কিংবা অনুশোচনা নেই ২০ বছরের এই জাপানী তরুণীর।

বৃহস্পতিবার নিজের দেশ জাপানে ফিরেই সংবাদ মাধ্যমে নিজের অনুভূতির কথা জানান নাওমি ওসাকা। তিনি বলেন, ‘আমার জন্য এটা মোটেও দুঃখের কিছু নয়। কেননা সেই মুহূর্তে যে আমার কেমন অনুভব করা উচিত ছিল সেটা জানা ছিল না। এ বিষয়ে সত্যিই আমার কোন অনুশোচনা নেই। কারণ সবমিলিয়েই আমি খুব সুখী। আমার জন্য এটা দারুণ এক অর্জন।’

ইউএস ওপেন জিতে বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়েও এগিয়েছেন ওসাকা। ১৯ থেকে এক লাফে সাতে উঠে এসেছেন তিনি। তার লক্ষ্য এখন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ পাঁচ। শুধু তাই নয়, এ বছরের শেষ টুর্নামেন্ট ডব্লিউটিএ ফাইনালসেও খেলতে চান তিনি। ওসাকা বলেন, ‘আমি মনে করি, এ বছরে আমার প্রধান লক্ষ্য হওয়া উচিত সিঙ্গাপুরে যাওয়া। প্যান প্যাসিফিক ওপেনে আমি ভাল করতে চাই। তারপর র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ পাঁচে থেকে মৌসুম শেষ করতে চাই। তবে এ জন্য মোটেও নিজের ওপর কোন ধরনের চাপ প্রয়োগ করতে চাই না। এই সময়টা উপভোগ করতে চাই।’ এ সময় তিনি জানান, ‘প্যান প্যাসিফিক টুর্নামেন্ট তো একদম কাছে। তাই আমি ডায়েট শুরু করতে চাই তবে অবশ্যই আইসক্রিমটা চালিয়ে যেতে চাই।’

দুই বছর পরই জাপানে বসবে বিশ্ব ক্রীড়ার মহাযজ্ঞ অলিম্পিক আসর। টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য সেই টুর্নামেন্টের স্বর্ণপদক জয়ের স্বপ্ন দেখছেন ওসাকা। এ প্রসঙ্গে নিজের অভিমত প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘অলিম্পিকে খেলাটা প্রতিটি খেলোয়াড়েরই স্বপ্ন। তাই আমি অবশ্যই স্বর্ণপদক জয়ের স্বপ্ন দেখি। আর টোকিওতে অলিম্পিকের আসর হওয়ায় আমি আরও বেশি রোমাঞ্চিত।’

গত দেড় দশক ধরেই টেনিস বিশ্বে আলো ছড়াচ্ছেন সেরেনা। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে ২৩টি গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের স্বাদ পেয়েছেন তিনি। আমেরিকান কিংবদন্তির সামনে ছিল ২৪ গ্র্যান্ডস্লাম জিতে মার্গারেট কোর্টের রেকর্ডে ভাগ বসানোর হাতছানি। কিন্তু সেই পথে বড় বাধা হয়ে দাঁড়ান ওসাকা। সেরেনাকে ২৪তম গ্র্যান্ডস্লাম খেতাব জিততে দেননি তিনি। ফ্লাশিং মিডোয় আলো জ্বেলেছেন নাওমি। ফাইনালে সেরেনাকে হারিয়েছেন ৬-২, ৬-৪ সেটে। সেই সঙ্গে প্রথম জাপানী টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে মেজর জিতে ইতিহাস লিখেছেন নাওমি। এক বছরে চারটি ভিন্ন সিঙ্গল জয়ের কৃতিত্ব গড়া নাওমি শেষ দুই মৌসুমে আটটি খেতাব জিতেছেন। ওপেন এরায় ডব্লিউটিএ ট্যুরে এটাই প্রথম। ১৬ অক্টোবর, ১৯৯৭ সালে জাপানের ওসাকাতে জন্মান তিনি। ১৯৯৯ সালে সেরেনা প্রথম খেতাব জিতেছিলেন। তখন নাওমির বয়স ছিল দু’বছর। এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে মেজর টুর্নামেন্ট জয়ের রেকর্ড এখন ওসাকার। তার আগে এই কীর্তি গড়েছিলেন চিনের লি না।

নাওমির মা জাপানী, বাবা হাইতির। সেরেনাই তার আইডল। ২০১৩ সালে পেশাদার টেনিস শুরু করে নাওমি। তিন বছর বয়সেই নিউইয়র্কে চলে আসেন তিনি। এখন ফ্লোরিডার মিয়ামিতে প্রশিক্ষণ নেন। সাসচা বাজিনের কাছে টেনিসের পাঠ নেন। এই সাসচাই সেরেনাকে আট বছর ট্রেনিং দিয়েছিলেন। নাওমি ২০১৪ সালে অকল্যান্ডের ওয়েস্ট ক্লাসিকে ডব্লিউটিএ ট্যুরের প্রথম মেইন ড্র’তে আসেন।

নাওমি সেবার সামান্থা স্টোসারকে হারিয়ে আন্দ্রে পেটকোভিচের কাছে হেরে যান। ২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে তার প্রথম গ্র্যান্ডস্লাম অভিষেক হয় কোয়ালিফায়ার হিসেব। টুর্নামেন্টের ১৮তম বাছাই এলিনা সিতোলিনার বিপক্ষে প্রথম রাউন্ডে জয় পান। কিন্তু দ্বিতীয় রাউন্ডে টুর্নামেন্টের সাবেক চ্যাম্পিয়ন ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কার কাছে হেরে যান তিনি। ২০১৬ সালের এপ্রিলে প্রথমবার কেরিয়ারে প্রথম ১০০তে আসেন। এ বছরের মার্চে ইন্ডিয়ান ওয়েলস জিতে প্রথম ডব্লিউটিএ খেতাব পান তিনি। মারিয়া শারাপোভা, ক্যারোলিনা পিসকোভা ও সিমোনা হ্যালেপের মতো তারকাদের হারিয়েছিলেন সেই টুর্নামেন্টে। ইউএস ওপেন জিতে ছাড়িয়ে গেলেন নিজের অতীতের সব পারফর্মেন্সকেই।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :