সকাল ৯:৫২, রবিবার, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং
/ এশিয়ান গেমস / হকিতে ৬ষ্ঠ স্থানই পেলো বাংলাদেশ
এশিয়ান গেমস ২০১৮
হকিতে ৬ষ্ঠ স্থানই পেলো বাংলাদেশ
সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮



ইন্দোনেশিয়া থেকে প্রতিনিধি

এশিয়ান গেমসের হকি ইভেন্টে পঞ্চম স্থান নির্ধারনী ম্যাচে শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে বিধ্বস্ত হয়েছে বাংলাদেশ। ৭-০ গোলের বড় ব্যবধানে হেরে ৬ষ্ঠ স্থান নিয়েই সন্তুষ্ঠ থাকতে হয়েছে গোবিনাথন কৃষ্ণমূর্তির শিষ্যদের। আজ শনিবার জিবিকে স্পোর্টস এরিনার হকি গ্রাউন্ডে বাংলাদেশ সময় দুপুর তিনটায় শুরু হওয়া এ ম্যাচে কোরিয়ানদের সামনে পাত্তাই পায়নি লাল-সবুজরা। এ ম্যাচটি আরো একটি কারনে গুরুত্বপূর্ণ ছিল শিটুলবাহিনীর কাছে। কারণ দলের অভিজ্ঞ স্ট্রাইকার মামুনুর রহমান চয়ন এ ম্যাচ খেলেই জাতীয় দলের জার্সী তুলে রাখবেন। লক্ষ্যছিল, অভিজ্ঞ এ ফরোয়ার্ডের বিদায়ী ম্যাচে কম গোলে হেরে তাকে সম্মান জানানোর। কিন্তু সেটিও হয়নি।

কোরিয়ার বিরুদ্ধে এ লড়াইয়ে এক মুহূর্তের জন্যও দাঁড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। একের পর এক আক্রমনে শুরু থেকেই কোনঠাসা হয়ে পড়েছিল গোপিনাথনের শিষ্যরা। বল দখলের লড়াইয়ের হিসেব কষলে আশি শতাংশ সময় বল ছিল কোরিয়ানদের দখলে। বাংলাদেশ মাঝে মধ্যে বল পেয়েছিল। কিন্তু প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগ চূর্ণ করাতো দূরে থাক, ডি-বক্সের সামনেও যেতে পারেনি। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মাত্র দশ মিনিটেই এগিয়ে যায় এশিয়ার পরাশক্তিরা। সিনইউ’র হিট থেকে পাওয়া বল কানেক্টে গোল করেন কিম জাংহু (১-০)। পাঁচ মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুন করেন সিউ ইনউ (২-০)। প্রথম কোয়ার্টারে দুই গোল করা কোরিয়ানরা দ্বিতীয় কোয়ার্টারেও দেখা পায় আরো দুই গোলের। ম্যাচের ২৬ মিনিটে জিয়ং জুনউ ফিল্ড গোল করে গোলের গ্রাফটা আরো একধাঁপ উপরে নিয়ে যান। এক মিনিট পরেই পিসি পেয়ে সেটা কাজে লাগিয়ে স্কোর লাইন ৪-০ করেন জাং জংইউন।

দ্বিতীয়ার্ধেও বাংলাদেশের সীমানায় আক্রমনের ধারা অব্যাহত রাখে প্রতিপক্ষ দলের ফরোয়ার্ডরা। ৩৩ মিনিটে আরো একটি পেনাল্টি স্ট্রোক পেয়ে যায় কোরিয়া। সেই পিসিটাও কাজে লাগান অধিনায়ক জাং মানজাই (৫-০)। তৃতীয় কোয়ার্টার শেষ হওয়ার এক মিনিট আগে দলের হয়ে ৬ষ্ঠ ও ব্যক্তিগত দ্বিতীয় গোলের দেখা পান জাং জংইউন (৬-০)। বাংলাদেশের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুঁকে দেন লি জুংগিয়ান (৭-০)। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে আসে এ গোলটি।

এর আগে, গত এশিয়ান গেমসেও দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে বড় ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশ। সেবার ৯-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছিল লাল-সবুজরা।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :