রাত ১২:০৪, শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
/ ফিফা ওয়াল্ড কাপ ২০১৮ / প্রতিপক্ষ শিবিরে আক্রমণই চান দুই কোচ
প্রতিপক্ষ শিবিরে আক্রমণই চান দুই কোচ
জুলাই ১০, ২০১৮



রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে আজ মঙ্গলবার রাতে ফ্রান্স ‌ও বেলজিয়াম ম্যাচে যে দলের কোচই জয় পান না কেনো, তিনি ইতিহাসে চলে যেতে পারেন। অথবা ইতিহাসের সামনে এসে দাঁড়াতে পারেন তিনি। বেলজিয়াম জিতলে বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাসে প্রথমবার ফাইনালে উঠবেন রোমেলু লোকাকুরা। আর ফ্রান্স জিতলে দিদিয়ের দেশামের সামনে খুলে যাবে ইতিহাস ছোঁয়ার সুবর্ণ সুযোগ। ফাইনালে দলকে জেতাতে পারলে ফ্রাঞ্জ বেকেনবা‌ওয়ার এবং মারিয়ো জাগালোর সঙ্গে একই সিংহাসনে বসতে পারবেন তিনি। ফুটবলার ও কোচ হিসেবে দেশকে চ্যাম্পিয়ন করার জন্য।

ইউরোপীয় ফুটবলের শক্তিধর দুই দেশের ম্যাচ। উত্তেজনায় ফুটছে ফুটবল-বিশ্ব। ফ্রান্সের কোচ দেশাম আর বেলজিয়ামের মার্টিনেস— দু’জনেই আক্রমনাত্মক ফুটবল পছন্দ করেন। একে অন্যের কৌশল সম্পর্কে‌ও যথেষ্ট ধারণা রাখেন। ‘আমি মার্টিনেসকে চিনি। ও আমার সঙ্গে ট্যাকটিক্যাল গেম খেলতে চাইবে। সেই সুযোগ আমরা দেবো না। ব্রাজিল যে ভুলটা করেছে, আমার ছেলেরা তা করবে না। আমরা সব রকম পরিস্থিতির জন্য তৈরি’, এমনটাই জানান ফ্রান্সের িবশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক দেশাম।

তবে এই সেমিফাইনালেই দেখা যাবে স্যামুয়েল উমতিতি বনাম লুকাকুর শক্তির লড়াই। বিশাল শরীরের লুকাকুকে রুখতে উমতিতিই আসল ওষুধ ফ্রান্সের। বার্সেলোনা স্টপারের অবশ্য সামান্য চোট আছে। তবে খেলবেন। এমবাপের সঙ্গে এডেন হ্যাজার্ডের গতির যুদ্ধও তো দেখবে ফুটবল দুনিয়া।

আঁতোয়া গ্রিজম্যান এবং কেভিন দ্য ব্রুইনকে নিয়ে দু’ই দেশের কোচের ফলস নাইন খেলানোর ভাবনা আদৌ সফল হয় কি না, সেটাও দেখার অপেক্ষায় থাকবেন সবাই। দু’দলের দুই গোলকিপার হুগো লরিস এবং থিবো কুর্তোয়া রয়েছেন দুরন্ত ফর্মে। তাঁদের মধ্যে কে অতিমানব হয়ে উঠবেন, কে আছড়ে পড়বেন, তা দেখতে চায় তো সবাই।

দুই কোচের ভাবনাতেই স্পষ্ট, আক্রমনই হাতিয়ার করতে চাইছেন তাঁরা। কিন্তু দু’দলের রক্ষণ কি সেই ঝড় সামলাতে পারবে? কারণ দু’দলের আক্রমণই ভয়ঙ্কর শক্তিশালী। ফ্রান্সে এমবাপের সঙ্গে পগবা, জিরুদরা যেমন আছেন, তেমনই লুকাকুর সঙ্গী হয়ে হ্যাজার্ড, ডি ব্রুইনরা আক্রমণে ঝড় তোলার জন্য নিজেদের অস্ত্রে শান দিচ্ছেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :