সকাল ১০:০৫, মঙ্গলবার, ১৬ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: ফাইনালের আগে
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: ফাইনালের আগে
মে ২৩, ২০১৮



আগামী শনিবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শিরোপা দ্বৈরথে ইউক্রেনের কিয়েভে স্পেনের রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ডের লিভারপুল। খেলার দেখার আগে জানা যাক, এই দুই জায়ন্টের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের হিসেব-নিকেশ।

স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ এর আগে ১২ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছে। ১৯৫৬, ১৯৫৭, ১৯৫৮, ১৯৫৯, ১৯৬০, ১৯৬৬, ১৯৯৮, ২০০০, ২০০২, ২০১৪, ২০১৬ এবং ২০১৭। এরমধ্যে শেষ ছয় ফাইনালে উঠেই চ্যাম্পিয়ন হয় লা ব্ল্যাঙ্কোরা। জুভেন্টাসের পর রিয়াল মাদ্রিদই একমাত্র দল যারা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে টানা তিনবার ফাইনালে ‌ওঠে। জুভেন্টাস ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত ফাইনালে ‌ওঠে।

ইংল্যান্ডের লিভারপুল এর আগে ৫বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছিল। ১৯৭৭, ১৯৭৮, ১৯৮১, ১৯৮৪ ‌ও ২০০৫ সালে। `অল রেড’দের বর্তমান দলের কোনো খেলোয়াড়েরই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা নেই।

এবারের আগে, ইউরোপিয়ান ফুটবলের আসরে মোট ৫বার মুখোমুখি হয়েছে দু’দল। তার মধ্যে লিভারপুল জিতেছে তিনবার আর দু’বার রিয়াল মাদ্রিদ। লিভারপুলের ছয় গোলের বিপরীতে রিয়ালের গোল চারটি।

এবারেরর রিয়াল মাদ্রিদ-লিভারপুল ম্যাচটি যেনো ১৯৮১ সালের পুনরাবৃত্তি। সবার‌ও এই দু’দল মুখোমুখি হয়িছলো ফাইনালে। প্যারিসে, খেলার ৮২ মিনিটে এলান কেনেডির গোলে শিরোপা জেতে লিভারপুল। ফাইনালর উঠে সেটাই ছিল রিয়ালের শেষ পরাজয়।

ফাইনালের এই ম্যাচে জিতলে রিয়াল মাদ্রিদ একমাত্র দল হিসেবে দুইবার টানা তিনবার করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জেতার রেকর্ড গড়বে। এর আগে, আয়াক্স (১৯৭১-৭৩) এবং বায়ার্ন মিউনিখ (১৯৭৪-৭৬) টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছিল।

১৩ পয়েন্ট নিয়ে এইচ গ্রুপে রানার্সআপ হয়ে দ্বিতীয় পর্বে ‌ওঠে রিয়াল মাদ্রিদ। এই গ্রুপে শীর্ষস্থানে ছিল টটেনহ্যাম হর্টপার। আর রিয়ালের পেছনে ছিল বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ‌ও অ্যাপোয়েল। দ্বিতীয় রাউন্ডে নেমইমারের প্যারিস সেন্ট জার্মেইকে ৫-২ গোল গড়ে (৩-১ হোম ‌ও ২-১ অ্যা‌ওয়ে) পরাজিত করে জিনেদিন জিদানের দল। কোয়ার্টার ফাইনালে জুভেন্টাসকে ৪-৩ গোল গড়ে (৩-০ অ্যা‌ওয়ে ‌ও ১-৩ হোম) পরাজিত করে। জার্মানির বায়ার্ন মিউনিখকে ৪-৩ গড়ে (২-১ হোম ‌ও ২-২ অ্যা‌ওয়ে) হারিয়ে ফাইনালে ‌ওঠে স্প্যানিশ জায়ান্টরা।

এদিকে, লিভারপুল প্লে অফে জার্মান দল হফেনহেইমকে হারায় প্রথমে। ই গ্রুপে ১২ পয়েন্ট নিয়ে সেভিয়া, স্পার্টাক মস্কো এবং মারিবরের আগে থেকে দ্বিতীয় রাউন্ডে ‌ওঠে। শেষ ১৬’র ম্যাচে পোর্তোকে ৫-০ গড়ে (৫-০ অ্যা‌ওয়ে ‌ও ০-০ হোম) পরাজিত করে তারা। ম্যানচেস্টার সিটিকে কোয়ার্টার ফাইনালে ৫-১ গড়ে( ৩-০ হোম ‌ও ২-১ অ্যা‌ওয়ে) এবং রোমাকে ৭-৬ গোল গড়ে (৫-২ হোম ‌ও ২-৪ অ্যা‌ওয়ে) পরাজিত করে ফাইনালে ‌ওঠে লিভারপুল।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :