রাত ৯:৪২, মঙ্গলবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং
/ অলিম্পিক (বিওএ) / বিভাগীয় পর্যায়ে খেলা সোমবার শুরু
বিভাগীয় পর্যায়ে খেলা সোমবার শুরু
জানুয়ারি ৭, ২০১৮

গতবছরের শেষভাগে দেশের ৬৪ জেলায় একযোগে শুরু প্রথমবারের মত আয়োজিত বাংলাদেশ যুব গেমস। জেলা পর্যায়ের খেলা শেষে বাছাইকৃত তিন হাজার ৪৭৩ জন প্রতিযোগী নিয়ে সোমবার বাংলাদেশ যুব গেমসের বিভাগীয় পর্যায়ের খেলা শুরু হচ্ছে। জেলা পর্যায়ে অংশ নেওয়া মোট ২৩ হাজার ২১০ জন প্রতিযোগীর মধ্যে বাছাইকৃত প্রতিযোগীদের বয়স ঠিকঠাক যাচাই করা হয়েছে বলে আজ রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু। সংবাদ সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন বিওএ মহাসিচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা, সহসভাপতি শেখ বশির আহমেদ ও উপমহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর।

লিখিত বক্তব্যে মিকু বলেন, উপজেলা পর্যায় থেকে আসা বাছাইকৃত প্রতিযোগীদের নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। বাছাইয়ে খেলোয়াড়দের মান এবং বয়সটাকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। জেএসসি, পিএসসি পরীক্ষার সার্টিফিকেট ও জন্মনিবন্ধন সনদ দেখে তাদের বয়স সঠিকভাবে নিরুপণ করা হয়েছে। তবে জেলা পর্যায়ে অনেক সীমাবদ্ধতার কারণে আমরা তাদের মান সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা পাইনি। কিন্তু বিভাগীয় পর্যায়ে সেটা পাওয়া যাবে বলে বিশ্বাস করি। জেলা পর্যায়ে বেশীরভাগ ইভেন্টই হ্যান্ড টাইমিংয়ে হয়েছে। কিন্তু বিভাগীয় পর্যায়ে আমরা আরও ভালো প্রযুক্তি দিয়ে সেটা যাচাই করতে পারব এবং বুঝতে পারব তাদের সঠিক মান। জেলা পর্যায়ে ভেন্যূতে ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান দেয়া হলেও বিভাগীয় র্পায়ে অর্থের পরিমান আরো বাড়ানো হবে। প্রতি ভেন্যুতে প্রথমবাারের মত আয়োজিত এ আসরে প্রতিটি বিভাগে ২১টি করে ইভেন্টের খেলা হওয়ার কথা থাকলেও সেটা হচ্ছে না। আর্চারি, উশু, জুডো, বাস্কেটবল, হকি, শুটিং, তায়কোয়ান্দো-এই সাতটি ইভেন্টের খেলা মূল পর্বে হবে বলে জানান মিকু। কেনানা বেশ কয়েকটি ইভেন্ট হয়ে পড়েছে নির্দিষ্ট কিছু এলাকা ভিত্তিক। অনেক জেলাতেই এই ডিসিপ্লিনের দল বা খেলোয়াড় নেই। যেমন আর্চারি নড়াইল, বাগেরহাটে খেলা হয়। তাই যে ডিসিপ্লিনগুলোতে দল বা খেলোয়াড় কম, তাদেরকে আমরা সরাসরি ঢাকায় মূল পর্বে খেলার সুযোগ দিয়েছি।

তবে আশার কথা শোনোলেন বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। চূড়ান্তভাবে বাছাই হওয়া অ্যাথলেটরা ঝরে পড়বে না বলেও সংবাদ সম্মেলনে আশা প্রকাশ করেন বিওএ মহাসিচিব। যাদেরকে বাছাই করা হবে, তাদেরকে বিভিন্ন ফেডারেশনের মাধ্যমে দেশে ও দেশের বাইরে অনুশীলনের সুযোগ করে দেওয়া হবে। ভবিষ্যতে যুব গেমস ও বাংলাদেশ গেমস প্রতি দু’বছর অন্তর মাঠে গড়ানোর আশ্বাসও দেন তিনি।

এবারের যুব গেমসে ২০জন খ্যাতনামা ক্রীড়াব্যিক্তিত্বকে শুভেচ্ছাদুত মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিত্য়া ক্রীড়াবিদদের উৎসাহিত করার লক্ষে তারা বিভিন্ন ভেনূতে যাবেন। পাশাপাশি বিভিন্ন ভেন্যুতে যাবেন বিওএ সভাপতি জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সংবাদ সম্মেলনে অন্যতম শুভেচ্ছাদুত ওয়ান ডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার ভিভিও বার্তা উপস্থাপন করা হয়।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :