বৃষ্টিতে খেলা না হলে কুমিল্লা ফাইনালে, নাকি অন্য হিসেব?

বৃষ্টিতে খেলা না হলে কুমিল্লা ফাইনালে, নাকি অন্য হিসেব?

আবহাওয়ার পূর্বাভাসেই ছিল রোববার সারাদিন বৃষ্টি হবে। বৃষ্টির আগাম খবর সত্য। শনিবার মাঝ রাত থেকেই রাজধানীর আকাশ মেঘে ঢাকা। বৃষ্টি বইছে অঝোর ধারায়। রোববার সকাল থেকে অবিরাম বর্ষন। কখনো টিপ টিপ, ইলশে গুরি। আবার কোন সময় ভারী বর্ষণ। 
নিম্নচাপের কারনে বৃষ্টি। কেটে না যাওয়া পর্যন্ত বৃষ্টি হবেই। তার মানে আজ বৃষ্টি বন্ধের সম্ভাবনা খুব কম। এখন প্রশ্ন হলো, এমন বৃষ্টি পড়লে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স আর রংপুর রাইডার্সের কোয়ালিফায়ার ২ ‘এর খেলার কি হবে? আজ সন্ধ্যায় (ছয়টায় শুরুর কথা) যে ঐ ম্যাচ হবার কথা।

বিপিএলের দ্বিতীয় ফাইনালিস্ট নির্ধারনে ঐ খেলার ফল নিষ্পত্তি খুব জরুরি। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্সের বিজয়ী দলই যে ১২ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শেরে বাংলায় বিপিএলের পঞ্চম আসরে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে ফাইনাল খেলবে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো এমন বৃষ্টি চলতে থাকলে খেলার কি হবে? ফাইনালের আগে আগামীকাল মানে সোমবার কোন খেলা নেই। তবে সেটা রিজার্ভ ডে হিসেবে বিবেচিত হবে না। কারন এবারের বিপিএলে ফাইনাল ছাড়া আর কোন ম্যাচে ‘রিজার্ভ ডে’ রাখা হয়নি। শুধু ১২ ডিসেম্বর ফাইনালের পর দিন রিজার্ভ রাখা হয়েছে।

রবিন লিগেও বৃষ্টিতে একদিন খেলা হয়নি। তাতে সমস্যা হয়নি। কারণ সেখানে কোয়ালিফায়ার বা এলিমিনেটরের মত জয়-পরাজয় নিষ্পত্তি অত্যাবশ্যক ছিল না। তাই বৃষ্টির কারণে না হওয়া ম্যাচে পয়েন্ট বণ্টন হয়েছে। খেলা পরিত্যক্ত ঘোষণা করে দুই দলের মধ্যে সমান এক পয়েন্ট করে ভাগ করে দেয়া হয়েছে।

কিন্তু আজ তামিম ইকবালের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও মাশরাফির রংপুর রাইডার্স ম্যাচে তো আর পয়েন্ট বণ্টনের সুযোগ নেই। এ ম্যাচে জয়-পরাজয় নির্ধারণ বা ফল নির্ধারণ হতেই হবে। কিন্তু বৃষ্টিতে খেলা না হলে এক দলকে জয়ী ঘোষণা করা হবে কিভাবে? তা নিয়েই নানা প্রশ্ন ও গুঞ্জন।

প্রশ্ন উঠেছে, বৃষ্টির কারণে যদি একটি বলও মাঠে না গড়ায় তাহলে কি হবে? তখন কোন দলকে জয়ী হবে? সেটা কিভাবে? তা নিয়েও রাজ্যের জল্পনা-কল্পনা। বাইলজ ও প্লেয়িং কন্ডিশনে বলা আছে, নক আউট পর্যায়ে (কোয়ালিফায়ার ও এলিমিনেটর) বৃষ্টিতে আদৌ খেলা না হলে, যে দল পয়েন্টে এগিয়ে থাকবে, তাদেরকেই জয়ী ঘোষণা করা হবে।

বলার অপেক্ষা রাখে না এই নিয়মে তামিম ইকবালের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স অনেক এগিয়ে। রবিন লিগ শেষে ১২ খেলায় সর্বাধিক নয় ম্যাচ জিতে ১৮ পয়েন্ট পেয়ে সবার ওপরে থেকে সেরা চারে জায়গা করে নিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। অন্যদিকে লিগ টেবিলে রংপুরের অবস্থান চার নম্বর। সমান ১২ ম্যাচের ছয়টিতে জিতে ১২ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ হয়ে শীর্ষ চার দলের মধ্যে চার নম্বরে উঠে এসেছে।

কাজেই পয়েন্ট টেবিলের অবস্থানকে মানদণ্ড ধরলে অতি অবশ্যই কুমিল্লাই শতভাগ নিশ্চিত ও নিরাপদ স্থানে। তার মানে বৃষ্টিতে আজ খেলা না হলে নিয়ম অনুযায়ী তামিমের দলেরই ফাইনালে খেলার কথা। তবে সেটাই কি চূড়ান্ত, নাকি শেষ মুহূর্তে অন্য কোন হিসেবে নিকেশও আছে?

এর সত্যিকার ও নিশ্চিত ব্যাখ্যা নিয়েই আছে ধুম্রজাল। যদিও একটা বড় অংশের ধারণা, বৃষ্টিতে বল মাঠে না গড়ালে প্রচলিত বাইলজ অনুযায়ী পয়েন্ট টেবিলে ওপরে থাকায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সই ফাইনালে চলে যাবে। কিন্তু প্রশ্ন হলো শেষ পর্যন্ত সত্যি সত্যিই ঐ নিয়ম বলবত থাকবে, না আরও কোন আইন-কানুন আছে?

মাঠে কি হলে কি হবে? বিপিএলের সব টেকনিক্যাল বিষয় যাদের হাতে, সেই টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুসও ঠিক স্পষ্ট ও নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না, বৃষ্টিতে একদম খেলা না হলে কি হবে? যদি বৃষ্টি হয়ই তাহলে কি হবে? কুমিল্লা না রংপুর কোন দল ফাইনালে যাবে? একদলকে তো ফাইনালে নিতেই হবে। সেটা কোন প্রক্রিয়ায়? কাছ থেকে এমন প্রশ্ন রাখা হলে জালাল ইউনুস অনেক ব্যাখ্যা দিয়েছেন, তার সারমর্ম হলো শনিবার রাত পর্যন্ত বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল বা টেকনিক্যাল কমিটি এবারের বিপিএলের বাইলজ অনুকরণ করেই ছিলেন। যেখানে পরিষ্কার বলা আছে, কোয়ালিফায়ার ও এলিমিনেটর মানে নকঅঅউট পর্বে বৃষ্টি কিংবা প্রকৃতি বাঁধা হয়ে দাঁড়ালে অর্থাৎ খেলা না হলে যে দলের লিগ বা পয়েন্ট টেবিলে পয়েন্ট বেশি থাকবে, তাদেরকেই জয়ী ঘোষণা করা হবে। তার মানে শেষ পর্যন্ত ঐ নিয়ম ও আইন বহাল থাকলে ‘পোয়াবারো’ তামিম ইকবালের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের। তখন না খেলেই ফাইনালে চলে যাবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আর তাতে কপাল পুরবে মাশরাফি, গেইল ও ম্যাককালামের রংপুর রাইডার্সের। এলিমিনেটর ১ এ খুলনা টাইটান্সকে উড়িয়ে ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়েও বিদায় নিতে হবে মাশরাফির দলকে।

কিন্তু জালাল ইউনুসের কথায় মনে হয়েছে সেটাই শেষ কথা নয়। বিপিএল টেকনিক্যাল কমিটি চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস আরও একটি বড় তথ্য দিয়েছেন। তি, ওপরে যে নিয়মের কথা বলা আছে, সেটা প্রাথমিক বাইলজ বা প্লেয়িং কন্ডিশন। কিন্তু প্লেয়িং কন্ডিশনে নাকি এও বলা আছে, টুর্নামেন্ট কমিটি বিপিএলের স্বার্থে যে কোন সময় যে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। অর্থাৎ পরিবেশ ও পরিস্থিতি মোকাবিলায় কোন আইন সংশোধন বা বদলাতে পারবে। এখন যে আইনে কুমিল্লাকে বিজয়ী ঘোষণার কথা বলা হয়েছে সে আইন নাকি পাল্টেও যেতে পারে। তাই শেষ মুহূর্তে সেই নিয়ম পাল্টে খেলা রিজার্ভ ডে‘তে গড়ালেও অবাক কিছু থাকবে না। 
জানা গেছে কোয়ালিফায়ার ও এলিমিনেটর পর্বের আগে এই নিয়ম পাল্টানোর কথা বলা হয়েছিল চার দলকেই। কিন্তু ঢাকা ডায়নামাইটস, খুলনা টাইটান্স ও রংপুর রাইডার্স বৃষ্টির কারণে খেলা রিজার্ভ ডে‘তে নেয়ার পক্ষে থাকলেও সবার ওপরে থাকা কুমিল্লা রাজি হয়নি।

এদিকে আজ (রোববার) দুপুরে বিসিবি পরিচালক পর্ষদের সভার আগেই বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল ও টেকনিক্যাল কমিটির যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হবে। কে জানে সেখানেই আজকের ম্যাচ রিজার্ভ ডে‘তে নিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত হতে পারে। এ সিদ্ধান্ত নেবার পক্ষে একটি যুক্তি অবশ্য আছে, উদ্ভুত পরিস্থিতিতে টুর্নামেন্ট কমিটির নাকি আইন পাল্টানোর ক্ষমতা আছে। বাইলজ ও প্লেয়িং কন্ডিশনে নাকি পরিষ্কার উল্লেখও আছে তা। এবং তাতে প্রতি দলের নাকি তাতে সম্মতি আছে। সব দলের কর্তাদের স্বাক্ষরও নাকি আছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD