সকাল ৬:৩৮, মঙ্গলবার, ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / ফিফার নিষেধাজ্ঞার কবলে বাংলাদেশ !
ফিফার নিষেধাজ্ঞার কবলে বাংলাদেশ !
ডিসেম্বর ৫, ২০১৭

ফিফার নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন-বাফুফে। ঢাকা মোহামেডানের সাবেক কোচ এমেকা ইউজিগোর বকেয়া বেতন পরিশোধের জন্য আগেই বাফুফের মাধ্যমে আদেশ দিয়েছিল বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা। পাশাপাশি শাস্তি হিসেবে প্রফেশনাল লিগে মোহামেডানের তিন পয়েন্ট কাটারও নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। তবে ফিফার নির্দেশনার বাস্তবায়ন না হওয়া এবং নাইজেরিয়ান ফুটবলার এমেকার পাওনা না মেটানোয় কঠোর অবস্থান নিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা।

২৮ নভেম্বরের মধ্যে এমেকার ইস্যু শেষ করার জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে (বাফুফে) নির্দেশনা দিয়েছিল ফিফা। কিন্তু বাফুফে গড়িমসি করে সময়ক্ষেপন করছে বলে ফিফা মনে করে। মোহামেডানের এই সাবেক কোচের পাওনা ২২ হাজার ডলার শোধ করার জন্য আগেই নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তাতে সাড়া না দেয়ায় জরিমানার সঙ্গে মোহামেডানের তিন পয়েন্ট কেটে নেয়ার জন্য বলা হয়ে। ফিফার এমন নির্দেশের পরও কোনো উদ্যোগ নেই মোহামেডানের। বাফুফেও মোহামেডানের তিন পয়েন্ট কর্তন করেনি। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে ফিফা বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে নিষিদ্ধের হুমকি দিয়েছে। বিষয়টি স্বীকার করে দ্রুত সমাধানের উদ্যেগ নেয়ার কথা জানান বাফুফে সাধারন সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ।

গত ২৮ নভেম্বর বাফুফেকে চিঠি পাঠিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। সে চিঠিতে ফিফার ডিসিপ্লিনারি কমিটির ডেপুটি সেক্রেটারি অ্যালেকজান্ডার জ্যাকবস লিখেছেন, যদি এবারও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ব্যর্থ হয়, সেক্ষেত্রে বাফুফের বিপক্ষে কঠিন সিদ্ধান্ত নেবে ফিফা। এমনকি বিশ্ব ফুটবল থেকেই বাংলাদেশকে বহিষ্কারও করা হতে পারে।

এর আগে ২০১৫ সালে কোচের প্রাপ্য ২০ হাজার ডলার দিয়ে দেওয়ার জন্য মোহামেডানকে নির্দেশ দিয়েছিল ফিফা। প্রতিশ্রুতি দিয়েও সেটা রাখতে পারেনি ক্লাবটি। পরবর্তীতে নতুন করে মোহামেডানের ওপর শাস্তি আরোপ করে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। চলতি লীগ থেকে ক্লাবটির তিন পয়েন্ট কেটে নিতে বলা হয়। পাশাপাশি ২০ হাজার ডলারের সঙ্গে পাঁচ শতাংশ সুদে দুই হাজার ডলার জরিমানাও দিতে হবে মোহামেডানকে। ফিফার এমন চিঠি পেয়ে নড়েচড়ে বসে মোহামেডান। এমেকার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্ঠাও করে ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। মোহামেডানের ডাইরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভুইয়ার দাবি করেছিলেন এমেকার সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি তারা সমাধান করে ফেলবেন। কিন্তু মাস পেরুলেও কিছু করেনি ক্লাবটি। যার খেসারত দিতে হচ্ছে এদেশের ফুটবলকে। ফিফার চিঠির ব্যাপারে বাফুফে সাধারন সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগও কিছুটা বিচলিত। মোহামেডানের অনুরোধে আমরা গত ১৮ নভেম্বর ফিফার কাছে চিঠি দেই, ৩০ দিন সময় চেয়ে। তার প্রেক্ষিতে গত ৩০ নভেম্বর ফিফার কাছ থেকে আমরা চিঠি পাই। ফিফা সময়ও বাড়িয়ে দেয়ার ব্যাপারে সম্মতি দেয়নি ফিফা, উল্টো জানিয়েছে ইমেডিয়েটলি মোহামেডানের তিন পয়েন্ট কেটে নিতে হবে। চিঠিতে কিছু গৎবাধা কথা রয়েছে। যেমন তারা বলেছে, আওতাভূক্ত সংস্থা হিসেবে ফিফার নিয়ম মেনে চলা ফুটবল গভর্নিং বডির কর্তব্য। বাফুফে যদি সেটি না করে তবে ফিফা বাফুফের বিরুদ্ধে ডিসিপ্লিনারি প্রক্রিয়া শুরু করবে। এখন আমরা আমাদের কাজ করবো। আগামী কাল বুধবার পেশাদার ফুটবল লীগ কমিটির সভা আছে। যেখানে বিষয়টি উত্থাপন করা হবে। আশা করছি বিষয়টির দ্রুত সমাধারন হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, ২০১২-১৩ মৌসুমে মোহামেডানের কোচের দায়িত্ব পান নাইজেরিয়ার সাবেক তারকা এমেকা ইউজিগো। কিন্তু কোচ হিসেবে খুব বেশিদিন টিকতে পারেননি একসময় সাদা-কালো জার্সির হয়ে খেলে যাওয়া সাবেক এই ফুটবলার। মৌসুমের মাঝপথে মোহামেডান ছেড়ে চলে গেলেও বুঝে পাননি পারিশ্রমিকের টাকা। বাধ্য হয়েই বাফুফের শরণাপন্ন হলেও বকেয়া পারিশ্রমিকের ২০ হাজার ডলার বুঝে পাননি। শেষ পর্যন্ত ফিফার কাছে নালিশ করেন তিনি।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :