বিকাল ৫:২৭, বৃহস্পতিবার, ২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / বিশ্বকাপের টিকিট পেলো ক্রোয়েশিয়া
বিশ্বকাপের টিকিট পেলো ক্রোয়েশিয়া
নভেম্বর ১৩, ২০১৭

বিশ্বকাপ প্লে-অফের দ্বিতীয় লেগে গ্রীসের সাথে গোলশূন্য ড্র করে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট পেলো ক্রোয়েশিয়া।

এই নিয়ে পঞ্চমবারের মত বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচ শেষে ক্রোয়েট কোচ ডালিচ বলেন, জাগরেবে আমরা ভাল খেলেছিলাম। কিন্তু এখানে খেলাটা কঠিন ছিল। প্রথম লেগে আমরা যদি ১-০ গোলে জিততাম তবে আজকের রাতটা সত্যিকার অর্থেই আমাদের জন্য কষ্টকর হতো। আমাদের দলটি খুবই ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল। রাশিয়ায় যাওয়াটা আমাদের প্রাপ্য ছিল।’

গত মাসে বরখাস্ত আন্টে কাচিচের জায়গায় কোচের পদে নিয়োগ পেয়েছিলেন ডালিচ। গ্রীসের কারাইসিয়াকিস স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের আটকে দিতে ডালিচের দ্বিতীয়ার্ধে রক্ষণাত্মক কৌশলই কাজে দিয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার ঘরের মাঠে গ্রীসকে ৪-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল ক্রোয়েশিয়া। দলের তারকা মিডফিল্ডার লুকা মড্রিচ জানান, আমাদের জন্য এটা একটি কঠিন ম্যাচ ছিল। আমরা আমাদের সাধ্যমত খেলতে পারিনি। তবে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে খেলার ফলাফল। গ্রীস আজ দারুন খেলেছে। পুরো ম্যাচে প্রায় সময়ই তারা আমাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু তেমন গুরুত্বপূর্ণ কোন সুযোগ তারা সৃষ্টি করতে পারেনি।

গ্রীসের জার্মান কোচ মাইকেল স্কিবে জাগরেবে প্রথম লেগে বিধ্বস্ত হওয়া দলটি থেকে বেশীরভাগ খেলোয়াড়কে বাদ দিয়েছিলেন। ক্রোয়েট স্ট্রাইকার নিকোলা কালিনিচকে আটকানোর জন্য অবশ্য রোমা ডিফেন্ডার কস্তাস মানোলাস দলে ফিরেছিলেন। স্কিবে বলেছেন, তিন দিন আগে দূর্ভাগ্যবশত জাগরেবে আমরা অত্যন্ত বাজে খেলেছি যার খেসারত আজ দিতে হলো। এছাড়াও আজকের ম্যাচেও অনেকগুলো ভুল হয়েছে। তারপরেও আমরা ক্রোয়েশিয়ার তুলনায় ভাল খেলেছি। তবে আগের ম্যাচের ফলাফলটাই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে।
ম্যাচের প্রথম ৩০ মিনিট পুরো নিয়ন্ত্রন ছিল গ্রীসের কাছে। কিন্তু বরুসিয়া ডটুমুন্ডের ডিফেন্ডার সোকরাটিস পাপাস্টাথোপোলাস ও এথেন্সের ফরোয়ার্ড আনাসতাসিও বাকাসেটাসের দুটি ভাল শট সত্তেও স্বাগতিক দল কাঙ্খিত গোলের দেখা পায়নি। বিরতির চার মিনিট আগে কোস্টার মিট্রোগলুর ক্রস থেকে মিডফিল্ডার জেকার হেড ক্রোয়েশিয়ারন গোলরক্ষক ড্রানিয়েল সুবাসিচ কোনরকমে রক্ষা করেন। কিন্তু ৪৩ মিনিটে ইন্টার মিলানের উইঙ্গার ইভান পেরিসিচের শট পোস্টে না লাগলে ক্রোয়েশিয়া হয়ত তখনই এগিয়ে যেতে পারতো। এর আগে বার্সেলোনা মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচের কার্লিং ফ্রি-কিক একটুর জন্য ক্রসবারের উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়।
দ্বিতীয়ার্ধেও গ্রীস বেশ কয়েকটি সুযোগ পেয়েছে, কিন্তু কোনটাই কাজে লাগাতে পারেনি। পেনাল্টি এরিয়ার সামান্য বাইরে থেকে মিট্রোগলুর শট অল্পের জন্য বাইরে চলে যায়। ৭৯ মিনিটে বদলী খেলোয়াড় ডিমিট্রিস পেলকাসের গোল অফ-সাইডের কারণে বাতিল হলে আবারো হতাশ হতে হয় স্বাগতিকদের।

এর আগে, ১৯৯৮ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার সুযোগ পেয়েই তৃতীয় হয়েছিলো ক্রোয়েশিয়া। তাছাড়া ২০০২ সালে জাপান-কোরিয়া, ২০০৬ সালে জার্মানি এবং ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপে‌ও খেলেছিলো ক্রোয়েশিয়া।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :