লায়নে বিস্মিত লেহম্যান

লায়নে বিস্মিত লেহম্যান

শামীম চৌধুরী,চট্টগ্রাম থেকে ঃ ভারত সফরে অশ্বিন,রবীন্দ্র জাদেজার সঙ্গে
লড়াইটা জমিয়ে তুলেছিলেন অজি অফ স্পিনার ন্যাথান লায়ন। ওই সিরিজে
বেঙ্গালুরু টেস্টে এক ইনিংসে ৮ উইকেটে (৮/৫০) ভারত স্পিনারদের মাথা
এলোমেলো করে দিয়েছিলেন এই অজি স্পিনার। ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৬
উইকেটে অজি বোলিং অ্যাটাকে দিয়েছেন আস্থার প্রতিদান। উপমহাদেশে বোলিং
ভেল্কিটা ভালই দেখাচ্ছেন লায়ন। ৬৮তম টেস্টে এসে আড়াইশ’ শিকার উৎসব করে
চট্টগ্রাম টেস্টে একটু বেশিই ফুরফুরে দেখাচ্ছে তাকে। চট্টগ্রাম টেস্টের
প্রথম দিনে ৫ উইকেট পূর্ন করে উপর্যুপরি ৩ টেস্টে ৫ উইকেটের ইনিংসের মুখ
দেখা এই স্পিনার বাংলাদেশের ৪ টপ অর্ডারের সবাইকে এলবিডাব্লুতে শিকারে
করেছেন রেকর্ড। সেই কৃতিকে টেস্টের দ্বিতীয় দিনে নিয়ে গেছেন অন্য
উচ্চতায়। তার এক স্পেলে ( ৮.২-১-১২-২) বাংলাদেশ থেমেছে দ্বিতীয় দিনে
লাথেঞ্চর আগে। ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো দেখেছেন ৭ উইকেট। বাংলাদেশের
বিপক্ষে ইনিংসে সর্বোচ্চ ৮ উইকেটের রেকর্ডটি এখনো অক্ষত অজি লেগ স্পিনার
ম্যাকগিলের। ১১ বছর আগে ফতুল্লায় (৮/১০৮) ম্যাকগিলের সেই ম্যাচ উইনিং
বোলিংয়ের পেছনে নিউজিল্যান্ডের কেয়ার্নস ( ২০০১ সালে হ্যামিল্টনে ৭/৫৩),
পাকিস্তানের দানিশ কানেরিয়া ( ২০০২ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ৭/৭৭),
ভারতের জহির খান ( ২০১০ সালে মিরপুর টেস্টে ৭/৮৩) এবং শ্রীলংকার রঙ্গনা
হেরাথের ( ২০১৩ সালে কলোম্বো টেস্টে ৭/৮৯) ছিল এতোদিন ৭ উইকেটের ৪টি
ইনিংস। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অবশ্য এটাই সেরা বোলিং ফিগার নয়। ৯
বছর আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের বাঁ হাতি স্পিনার সাকিবের জাত
চেনানো বোলিং (৭/৩৬) এখনো সাগরিকায় সেরা টেস্ট বোলিং। তবে বাংলাদেশের
বিপক্ষে ম্যাকগিল,কেয়ার্নস,কানেরিয়া,হেরাথের পাশে গতকাল সফল বোলার হিসেবে
যুক্ত করে লায়ন ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে নিজেকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার
স্বপ্ন দেখতেই পারেন। তিন টেস্টের সিরিজে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২৬ উইকেটের
রেকর্ড আছে মুরালীধরনের ( ২০০৭ সালে শ্রীলংকার মাটিতে) । তবে ২০০৪ সালে
বাংলাদেশ সফরে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে কিউই
লিজেন্ডারী স্পিনার ভেট্টরির ২০ উইকেটের রেকর্ডকে এখন চোখ রাঙাচ্ছেন
ন্যাথান লায়ন। ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরে বাংলাদেশকে দগ্ধ করা স্বদেশী
লেগ স্পিনার স্টুয়ার্ট ম্যাকগিলের ১৭ উইকেটের রেকর্ড তো দূরের কথা, ২০০৪
সালে বাংলাদেশ সফরে ভারতের পেস বোলার ইরফান পাঠানের ১৮ উইকেটকেও
রাঙাচ্ছেন চোখ লায়ন। ৩ ইনিংসে ১৭ উইকেট নিয়ে ২ ম্যাচের সিরিজে অনন্য কিছু
অর্জনের স্বপ্নই যে লায়নকে দেখাচ্ছে এখন সাগরিকা।
উপমহাদেশে কার্যকর ন্যাথান লায়নের দারুন বোলিং ধারাবাহিকতায় রীতিমতো
মুগ্ধ অজি কোচ ড্যারেন লেহম্যান। অজি লিজেন্ডারি স্পিনার শেন ওয়ার্ন,
স্টুয়ার্ট ম্যাকগিলের এই টিমমেট লায়নের বোলিংয়ের প্রশংসা মুগ্ধÑ‘ অবশ্যই
দারুন। এই কন্ডিশনে সে ভাল থেকে ভাল করছে। বৈচিত্রে পরিবর্তন এনেছে। ভাল
জায়গায় বল করে ৫০টি রান কম দিয়েছে। আমি তার বোলিং ধারাবাহিকতার প্রশংসা
না করে পারছি না। ’

" class="prev-article">Previous article

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD