রাত ২:১০, রবিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / ভয়কে জয় করার চ্যালেঞ্জ কৃষ্ণাদের সামনে
ভয়কে জয় করার চ্যালেঞ্জ কৃষ্ণাদের সামনে
সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

কবিরুল ইসলাম, চনবুড়ি (থাইল্যান্ড) থেকে : উত্তর কোরিয়ার দু:স্বপ্ন এখনো ভুলতে পারছে না বাংলাদেশের মেয়েরা। এশিয়ার শক্তিশালী দলটির বিরুদ্ধে হারটাই ছিল স্বাভাবিক। কিন্তু এতো বড় ব্যবধানে (৯-০) পরাস্ত হওয়াটা ছিল প্রত্যাশার বাইরে। পরাজয়ের ব্যবধানটা যদি ৫-০ হতো, তারপরও মেনে নিতে পারতেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। কিন্তু শিষ্যদের এমন হার কোনভাবেই মেনে নিতে পারছেন না।

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশীপের বাছাই পর্বে যে বাংলাদেশকে দেখেছিল বিশ্ব ফুটবল। তার ছিঁটেফোঁটাও দেখা যায়নি মূল পর্বে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিজেদের প্রথম ম্যাচে। রানিং কিংবা পাসিং, কোন কিছুতেই কন্ট্রোল ছিল না মৌসুমী-স্বপ্নাদের। ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত দেখা গেছে তাদের। রানিংয়ে কোন গতি ছিল না। নিজেদের মধ্যে ছিল না কোন সমন্বয়। বল পায়ের সামনে এলেই এলোমেলো পাস দিয়েছেন। অজানা একটা ভয় থেকেই যে কৃষ্ণ-মার্জিয়ারা এমন অগোছালো ফুটবল খেলেছেন, সেটা সহজেই স্বীকার করে নিয়েছেন কোচ ছোটন। তাই জাপান ম্যাচের আগে সেই ভুলগুলো সূধরে নিতে চাইছেন। একই সঙ্গে দলকে মানসিকভাবে চাঙ্গা করার কৌশল নিয়েছেন তিনি। ভয়কে জয় করে মাঠে নামাই এখন নতুন করে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে লাল-সবুজদের সামনে- এমনটাই মনে করছেন ছোটন। আগামিকাল স্থানীয় সময় বিকাল ৫টায় চনবুড়ি স্টেডিয়ামে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশের কিশোরিরা মুখোমুখি হবে জাপানের।

উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিজেদের স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারেননি মৌসুমী-স্বপ্নারা। প্লেয়াররা তাদের কনফিডেন্স ধরে রাখতে পারেনি ঐ ম্যাচে। দলের ‘কি’ প্লেয়র মৌসুমী, স্বপ্না, নার্গিস নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারেনি বলেই বেশী গোল হজম করতে হয়েছিল। এখন আমরা জাপান ম্যাচ নিয়ে ভাবছি। আমাদের টার্গেট হলো প্লেয়ারদের জাগিয়ে তোলা এবং স্বাভাবিক খেলাটা খেলানো। কোন দলের বিরুদ্ধে খেলছে সেটা না ভেবে নিজেদের খেলার দিকেই নজর দিতে বলেছি।’

জাপানের বিরুদ্ধে এরআগে বাংলাদেশ জাতীয় দল ২৪-০ গোলে পরাস্ত হয়েছিল। দ্রুত লয়ের ফুটবল খেলা জাপানিজদের সাথেও কি বিপর্যয় ঘটবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে ছোটন জানালেন, ‘জাপান শক্তিশালী দল এবং ছোট ছোট পাসে কুইক ফুটবল খেলে। চলতি এ আসরে ওরা অস্ট্রেলিয়াকে ৫-০ গোলে হারিয়েছে। তবে আমার বিশ্বাষ মেয়েরা যদি নিজেদের খেলাটাও আগামিকাল খেলতে পারে, তাহলে বিপর্যয় ঘটবে না। তবে ফুটবলে যেকোনা কিছুই ঘটতে পারে। সেটাও মানতে হবে আমাদের।’

উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সেরা একাদশে ঠাঁই পেয়েছিলেন দলের অনিয়মিত গোলরক্ষক রোকসানা বেগম। তিনি ৫৯ মিনিট মাঠে থেকে সাতবার বল আটকাতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। এ সাতটি গোলের মধ্যে পাঁচটি গোলই হয়েছিল গোলরক্ষকের ভুলে। তাই স্বাভাবিকভাবেই জাপানের বিরুদ্ধে ম্যাচে রোকসানা থাকতে পারছেন না। ম্যাচের আগের দিন (আজ) সে রকম ঈঙ্গিতটাও দিয়েছেন কোচ, ‘দলের নিয়মিত গোলরক্ষক মাহমুদা আসতে পারেন সেরা একাদশে। এছাড়া মিডফিল্ডে আসবে একটি পরিবর্তন।’

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :