সকাল ৬:৪৯, রবিবার, ২৩শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / নৃত্যশ্পিল্পী থেকে বিশ্বরেকর্ডধারী ক্রিকেটার
নৃত্যশ্পিল্পী থেকে বিশ্বরেকর্ডধারী ক্রিকেটার
জুলাই ১৪, ২০১৭

বরাবরই তাঁকে মহিলা ক্রিকেটের শচীন টেন্ডুলকার বলা হয়। তিনি মহিলাদের বিশ্ব ক্রিকেটে যে দাপট দেখিয়েছেন তা এক কথায় অনন্য। ব্যাটসম্যান হিসেবে একেরপর এক শৃঙ্গ জয় করেছেন। বলছি, ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক তথা সবচেয়ে সেরা ব্যাটসম্যান মিতালি রাজের কথা। প্রথম মহিলা ক্রিকেটার হিসেবে একদিনের বিশ্ব ক্রিকেটে ৬ হাজার রান করেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে চলতি বিশ্বকাপের ম্যাচে ব্রিস্টলে এই রেকর্ড গড়েছেন মিতালি রাজ। এই রেকর্ডের ফলে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যান শার্লট এডওয়ার্ডসকে পিছনে ফেললেন তিনি। শার্লট একদিনের ম্যাচে ৫৯৯২ রান করে এতদিন শীর্ষস্থান ধরে রেখেছিলেন। মিতালি নিজের কেরিয়ারের ১৮৩ তম একদিনের ম্যাচে এই কৃতিত্ব অর্জন করলেন। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ৩৪ রান করে মিতালি নতুন কৃতিত্ব অর্জন করেন। সেই ম্যাচে শেষপর্যন্ত ৬৯ রান করে মিতালি আউট হন।

মিতালি রাজ

সবচেয়ে কমবয়সে একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরির রেকর্ড রয়েছে মিতালির। এছাড়া অভিষেকেই শতরান করেছিলেন তিনি। এর পাশাপাশি ১৮ বছরের আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে মিতালি টেস্ট ম্যাচেও দ্বিশতরান করেছেন। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে পরপর সাতটি একদিনের ম্যাচে অর্ধশতরানের রেকর্ডও রয়েছে এই তারকা মহিলা ক্রিকেটারের।
তবে ছোটবেলায় ক্রিকেট খেলা বা খেলোয়াড় হওয়ার প্রতি সেরকম আগ্রহ ছিল না। ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটের ‘শচীন তেন্ডুলকার’ মিতালি রাজ ভরতনট্যম নৃত্যশিল্পী হওয়ার স্বপ্নে বিভোর তখন। তবে একটু বয়স হতেই ক্রিকেটের প্রতি টান তৈরি হয়। পরে বদলে যায় ভালোবাসায়। মিতালিকে ভারতীয় ক্রিকেটকে উপহার দেওয়ার কৃতিত্ব মূলত দুজনের। একজন প্রাক্তন হায়দরাবাদী পেসার জ্যোতি প্রসাদ, অন্যজন প্রয়াত এনআইএস কোচ সম্পত কুমার। জ্যোতি দশবছর বয়সী মিতালির মধ্যে ট্যালেন্ট দেখেন। সম্পত অ্যাকাডেমিতে মিতালিকে গড়ে তোলেন।

মিতালি রাজ

মিতালির বাবা ডোরাই রাজ ভারতের বিমানবাহিনীর প্রাক্তন সেনা। পরে ব্যাঙ্কে চাকরি নেন। তিনিই হাতে ধরে মেয়েকে সেকেন্দ্রাবাদে সেন্ট জন্স কোচিং ক্যাম্পে নিয়ে যেতেন। তখন মিতালির বয়স মাত্র ১০ বছর। সেখানেই জ্যোতি প্রসাদ চিনে নেন মিতালির প্রতিভাকে। সঙ্গে প্র্যাকটিস করতেন মিতালির ভাইও। কয়েকমাস পরে ডোরাই রাজকে ডেকে জ্যোতি প্রসাদ বলেন, ছেলে নয়, মেয়ের প্রতি বেশি মনোনিবেশ করতে। কারণ মিতালি বেশি প্রতিভাবান। তবে জ্যোতি প্রসাদের ক্যাম্পে বেশিদিন ক্রিকেট শেখা হয়নি মিতালির। সেখানে ছেলেদের ক্রিকেট শেখানো হতো। ফলে জ্যোতির পরামর্শেই মিতালিকে নিয়ে বাবা ডোরাই রাজ হাজির হন সম্পত কুমারের কাছে। কিছুদিনের মধ্যেই মিতালির প্রতিভা দেখে মুগ্ধ সম্পত জানিয়ে দেন, এই মেয়ে শুধু ভারতের হয়ে খেলবেই না, বহু রেকর্ড ভেঙে দেবে।

মিতালি রাজ

১৯৯৯ সালের ২৬ জুন মাত্র ১৬ বছর ২০৫ দিন বয়সে সবচেয়ে কমবয়সী হিসেবে একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করে, মিতালি যে রেকর্ড গড়েন তা আজও অটুট।
একদিনের ক্রিকেটে সর্বাধিক রান
কয়েক দিন আগে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের ম্যাচে ব্যক্তিগত ৬ হাজার রানের মাইলস্টোন টপকে গেছেন মিতালি। এর আগে মহিলাদের একদিনের ক্রিকেটে সর্বাধিক রান সংগ্রাহক ছিলেন ইংল্যান্ডের শার্লট এডওয়ার্ডস। তাঁর করা ৫৯৯২ রান টপকে মিতালি আপাতত ৬০২৮ রানে দাঁড়িয়ে। আর আশেপাশে তাঁকে ধরার মতো কেউ নেই।
একদিনের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ গড়
ওয়ানডে ক্রিকেটে গড়ের হিসেবেও সকলকে টপকে গেছেন ভারত অধিনায়ক মিতালি রাজ। অন্তত তিন হাজার রান করেছেন এমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ব্যাটিং গড়ে সবার উপরে রয়েছেন মিতালি। তাঁর গড় ৫১.৫২। তাঁর পরে আছেন অস্ট্রেলিয়ার কারেন রল্টন (৪৮.১৪ গড়) ও বেলিন্ডা ক্লার্ক (৪৭.৪৯)। তবে এরা মিতালির চেয়ে অনেকটাই পিছিয়ে।
সবচেয়ে বেশি অর্ধশতরান
দীর্ঘ ১৮ বছরের আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে মিতালি মাত্র ১৬৪টি ম্যাচ খেলেছেন। তবে তার মধ্যে ৪৯টি অর্ধশতরান করেছেন তিনি। তাঁর পিছনে রয়েছেন শার্লট এডওয়ার্ডস (৪৬টি) ও কারেন রল্টন (৩৩টি)।
মিতালি খেলা মানে ভারত জেতা। মহিলা ক্রিকেটে এটাই দস্তুর। মিতালি দলের জয়ে ভূমিকা নিয়েছেন অনেক বেশি। দল জিতেছে এমন ম্যাচে মিতালির ব্যাটিং গড় ৭৫.৭২। অনেক পিছনে রয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্টেফানি টেলর (৬৬.১৩ গড়) ও অস্ট্রেলিয়ার মেগ ল্যানিং (৬৩.৪০ গড়)।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :