সকাল ৮:২৩, রবিবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / আগামী ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত বাংলাদেশের
আগামী ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত বাংলাদেশের
জুলাই ২, ২০১৭

২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের। শুক্রবার ভারতের বিপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হারেই তা নিশ্চিত হয়।
এখন রেটিং পয়েন্টে যে অবস্থা আছে, তাতে চাইলেও আর বাংলাদেশকে র‌্যাঙ্কিংয়ের আট নম্বরের নিচে নামানো সম্ভব নয়। র‌্যাঙ্কিংয়ে এ মুহূর্তে বাংলাদেশ আছে সাত নম্বরে। রেটিং পয়েন্ট ৯৪। বাংলাদেশের পরে আছে শ্রীলঙ্কা। তাদের র‌্যাঙ্কিং আট নম্বর। রেটিং পয়েন্ট ৯১। এরপর নয় নম্বরে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তাদের রেটিং পয়েন্ট ৭৭। বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কা টপকাতে পারলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর টপকাতে পারবে না।
সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যে আটটি দল র‌্যাঙ্কিংয়ের আট নম্বর পর্যন্ত থাকবে। তারাই ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার সুযোগ পাবে। বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার রেটিং পয়েন্ট পার্থক্য ১৭। কোনভাবেই এই ১৭ পয়েন্ট আর জোগাড় করা সম্ভব নয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ আরও ৮টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে। কিন্তু আর কোনভাবেই তাদের ১৭ পয়েন্ট পাওয়া সম্ভব নয়। ভারতের বিপে এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সিরিজ চলছে। সিরিজের আছে বাকি দুই ম্যাচ। এই দুই ম্যাচ জেতার সঙ্গে আয়ারল্যান্ডের বিপে একটি ওয়ানডে ও ইংল্যান্ডের বিপে আসন্ন ৫টি ওয়ানডে জিতলেও ১৭ পয়েন্ট পাবে না ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
ভারতের বিপে হাতে থাকা দুটি ম্যাচ জিতলে ৮২ পয়েন্ট হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। এরপর আয়ারল্যান্ডের বিপে একটি ম্যাচ জিতলে মিলবে ১ পয়েন্ট। হবে ৮৩ পয়েন্ট। যদি ইংল্যান্ডকে টানা ৫ ম্যাচেও হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ, মিলবে আরও ১০ পয়েন্ট। হবে ৯৩ পয়েন্ট। তার মানে তখনও বাংলাদেশের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম থাকবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। তার মানে সামনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ শুধু শ্রীলঙ্কাকেই পেছনে ফেলার সুযোগ পাচ্ছে, বাংলাদেশকে নয়। আর তাই বাংলাদেশের বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের যে ভরাডুবি দেখা যাচ্ছে, তাতে ধরেই নেয়া হচ্ছে, শেষপর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপেও সরাসরি খেলতে পারবে না।
২০১৯ সালের বিশ্বকাপ হবে ইংল্যান্ডে। সেই বিশ্বকাপে সরাসরি আটটি দল খেলবে। মোট ১০ দলের টুর্নামেন্ট হবে। বাকি দুটি দল বাছাইপর্ব উতরে বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পাবে। র‌্যাঙ্কিংয়ের আট নম্বর দল সরাসরি খেলবে। ইংল্যান্ড স্বাগতিক বলে তারা এমনিতেই খেলবে। এরপর ইংল্যান্ডকে বাদ দিয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ের আট নম্বর পর্যন্ত যে সাতটি দল থাকবে, তারাই সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে। বাংলাদেশ যে আট নম্বরে অন্তত থাকছে, তা নিশ্চিত হয়ে গেল। দণি আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড আগেই বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত করেছে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপা জিতে পাকিস্তানও সেই দলে যোগ দিয়েছে। সাত নম্বর দল হিসেবে বাংলাদেশও একই পথের পথিক হয়ে গেল। এখন আর একটি দল বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার সুযোগ পাবে। সেটি শ্রীলঙ্কা না ওয়েস্ট ইন্ডিজ হবে, তা সময়ই বলে দেবে।
সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হার-জিতের হিসাব শতভাগ ধরা দেবে। র‌্যাঙ্কিংয়ে রেটিং পয়েন্ট হিসাব হয় হার-জিতের হিসাবেই। যদি দুই দলের মধ্যকার ৩৮ বা তার বেশি রেটিং পয়েন্ট পার্থক্য থাকে, তাহলে রেটিং পয়েন্টে নিচে থাকা দলটি ৩ পয়েন্ট করে পায়। সেই হিসেবে ভারতের বিপস্ষে (১১৬ রেটিং পয়েন্ট) চতুর্থ ওয়ানডেটি যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতে তাহলে ৩ পয়েন্ট পাবে। হবে ৮০ পয়েন্ট। এরপর ভারতের সঙ্গে পঞ্চম ওয়ানডে জিতলে পাবে ২ পয়েন্ট। হবে ৮২ পয়েন্ট। আয়ারল্যান্ডের বিপে জিতলে আরও ১ পয়েন্ট। আর ইংল্যান্ডের বিপস্ষে (১১৩ রেটিং পয়েন্ট) পাঁচ ম্যাচই জিতলে আরও ১০ পয়েন্ট মিলবে। সবমিলিয়ে ৯৩ পয়েন্ট হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। বাংলাদেশকে ছুঁতেই পারবে না। আর যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজ হারতে থাকে, তাহলে কথাই নেই।
সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের যদি কোন ওয়ানডে ম্যাচ থাকত, তাহলে সমস্যা হতে পারতো। তখন হারলেই রেটিং পয়েন্ট কমার সম্ভাবনা থাকত। কিন্তু এই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের কোন ওয়ানডে খেলাই নেই। পাকিস্তানের বিপে সিরিজ ছিল। কিন্তু পাকিস্তান খেলবে না। তাই বাংলাদেশের আর রেটিং পয়েন্ট কমারও কোন সম্ভাবনা নেই।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :