অজিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজ হবে: সাকিব

অজিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজ হবে: সাকিব

বোর্ডের সঙ্গে চলমান সমস্যা সমাধান করে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল বাংলাদেশ সফরে আসবে বলে প্রত্যাশা, টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে আজ রবিবার সাকিব বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া দলের সফর দিয়েই আমাদের মৌসুম শুরু হবে। আশা করি, অস্ট্রেলিয়া আসবে এবং তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটা সিরিজ হবে।’
বোর্ডের সাথে দেনা-পাওনা নিয়ে ঝামেলা থাকায় অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর নিয়ে এখনও ধোয়াশা কাটেনি। বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি না হলে শুধু বাংলাদেশ সফর নয়, ভারত সফর এবং অ্যাশেজ সিরিজও বয়কট করার হুমকি দিয়ে রেখেছেন অসি ক্রিকেটাররা।

তবে অস্ট্রেলিয়া দল না আসলে বাংলাদেশের বড় ক্ষতি হবে মনে করা বিশ্ব সেরা এ অলরাউন্ডার বলেন, ‘আগে অস্ট্রেলিয়া আসুক। বড় একটা বিরতি গেলো। আশা করি, অস্ট্রেলিয়া আসবে এবং ভালো একটা সিরিজ হবে। তারা যদি না আসে, তাহলে সরাসরি দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়ে খেলতে হবে। আর সেখানে আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জটা কঠিন হয়ে যাবে।’
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে নিজের ৫০তম টেস্ট খেলার পথে থাকা সাকিব বলেন, ‘গত কিছুদিন ধরে আমরা বেশ কিছু টেস্ট খেলেছি। নতুবা এখন আমার ৩০ টেস্ট সংখ্যা থাকতো। সে হিসেবে মনে হয় ঠিক আছে! আশা করি অস্ট্রেলিয়া আসবে, আমিও ফিট থাকবো এবং ভালো একটা সিরিজ হবে।’
প্রতিটি সিরিজের আগে কন্ডিশনিং ক্যাম্প অত্যন্ত জরুরি বলে মনে করেন সাকিব। তিনি বলেন, ‘প্রতিটি সিরিজের পর যদি দুই-তিন সপ্তাহের ব্রেক হয়, কন্ডিশনিং ক্যাম্প করা যায়, তাহলে খেলোয়াড়দের জন্য ভালো হয়। এতে ফিটনেস বা ব্যক্তিগত বিভিন্ন ভুল-ত্রুটি নিয়ে নানা কাজ করা যায়। তখন একজন খেলোয়াড় তার ত্রুটিপূর্ণ ব্যাপারগুলো চিহ্নিত করে কাজ করতে পারেন। খেলার মধ্যে থাকলে এগুলো করা যায় না।’
অস্ট্রেলিয়া সিরিজে আরও ভালো ক্রিকেট খেলার ইচ্ছা পোষণ করলেন সাকিব, ‘অবশ্যই উন্নতি চাইবো। গত বছরের তুলনায় আরও ভালো করতে চেষ্টা করবো। উন্নতির তো শেষ নেই। যে জায়গাগুলোতে এখনো আমার মন মতো অনেক কিছু হয়নি। এ সিরিজে আরও ভালো করতে চাই।’

ভিসা জটিলতার কারণে সাকিব এখনও ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ বা সিপিএলে খেলতে দেশ ছাড়তে পারেননি। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামীকাল সোমবার সন্ধ্যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের পথে রওনা হওয়ার কথা বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের। বাংলাদেশের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটার হলেও এবারের সিপিএলে নতুন অভিজ্ঞতা অর্জনের সংকল্প সাকিবের। তিনি বলেন, ‘আইপিএলে প্রতি দলে ১০ জন বিদেশি খেলোয়াড় থাকে। এ কারণে সেখানে প্রতিযোগিতা বেশি হয়। প্রতি দলে চার জনের বেশি বিদেশি খেলার সুযোগ পায় না। তাই ভালো খেললেও পরের ম্যাচে কম্বিনেশনের কারণে দল থেকে বাদ পড়তে হয় কোনো কোনো বিদেশিকে। কিন্তু সিপিএল বা পিএসএলে চার বিদেশি মোটামুটি নির্দিষ্ট থাকে। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে তাদের পরিবর্তন করা হয় না। এছাড়া আর কোনও পার্থক্য আমি দেখি না। সব জায়গার পরিবেশ এবং খেলার মান ভালো।’
গতবারের মতো এবারও সিপিএলে সাকিবের দল জ্যামাইকা তালাওয়াস। সিপিএলে এর আগে তিন মৌসুম খেললেও এবারের প্রতিযোগিতা নিয়ে সাকিব যথেষ্ট রোমাঞ্চিত। সাকিব বলেন, ‘প্রতিটি টুর্নামেন্টেই নতুন নতুন অভিজ্ঞতা হয়। মজা থাকে, রোমাঞ্চ থাকে। গত ১০-১৫ বছর ধরে ক্রিকেট খেলছি। যেখানেই খেলি, ভালো লাগে। এই কারণেই খেলে যাচ্ছি। অন্য টুর্নামেন্টের চেয়ে এখানকার পরিবেশ অন্যরকম। খেলার সময় সবাই সিরিয়াস থাকে। কিন্তু মাঠের বাইরে নির্ভার থাকে সবাই। ক্যারিবিয়ানে অনেক সুন্দর-সুন্দর জায়গা আছে। তাই সব কিছু মিলে ওখানে খেলাটা অনেক বেশি উপভোগ্য।’
এবারের সিপিএলে বাংলাদেশ থেকে শুধু সাকিব ও মিরাজ খেলার সুযোগ পেয়েছেন। তবে সাকিবের ধারণা, অস্ট্রেলিয়া সিরিজ না থাকলে সিপিএলে আরও কয়েকজন বাংলাদেশিকে দেখা যেতো এবার, ‘এ বছর পুরো টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ থাকলে বাংলাদেশ থেকে আরও কয়েকজন যেতে পারতো। দুই-একজনের নাম আলোচনাও হচ্ছিল। কিন্তু আমাদের তো খেলা আছে, সফরকারী দল কবে আসবে তা ফিক্সড থাকে। তাই অন্যদের প্রতি আগ্রহ দেখায়নি সিপিএলের দলগুলো।’
সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ সফরে আসার কথা অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের। আর ঢাকা ও চট্টগ্রামে দু’টি টেস্ট খেলবে সফরকারীরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD