ভোর ৫:৫৪, বৃহস্পতিবার, ১৬ই আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ভারত
দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ভারত
জুন ১১, ২০১৭

সেই দক্ষিণ আফ্রিকারই দেখা মিলল আরেকবার। চাপের মধ্যে ভেঙে পড়ে যারা বারবার। পড়ল ভারতের বিপক্ষে বাঁচা-মরার লড়াইয়েও। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ জিতলে টিকে থাকবে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে, এমন সমীকরণ সামনে রেখে মাঠে নামা প্রোটিয়ারা অলআউট হয়ে গেছে মাত্র ১৯১ রানে। ভারতীয় বোলারদের তোপের মুখে ৪৪.৩ ওভারে গুটিয়ে যায় তারা। এর পর প্রত্যাশামতো খুব সহজেই ম্যাচটি জিতেছে ভারত। বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের জয়টা ৮ উইকেটের।

লন্ডনের কেনিংটন ওভালে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু মাঝপথে ভেঙে পড়ে তাদের ব্যাটিং লাইনআপ। কুইন্টন ডিক কক, হাশিম আমলা ও ফাফ দু প্লেসিস যা একটু প্রতিরোধ গড়েছিলেন। বাকি সবাই ব্যস্ত ছিলেন আসা-যাওয়ায়।

সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হলো দক্ষিণ আফ্রিকার তিন ব্যাটসম্যান ফিরেছেন রান আউট হয়েছে। যার মধ্যে আছে এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ডেভিড মিলারের গুরুত্বপূর্ণ উইকেট দুটি। দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ের সঙ্গে ভারতীয় বোলাররাও ছিলেন অসাধারণ। ভুবনেশ্বর কুমার ও জসপ্রিৎ বুমরাহ ২টি করে উইকেট নেন, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজা ১ উইকেট করে পান।

কেনিংটন ওভালে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা দক্ষিণ আফ্রিকার শুরুটা মন্দ ছিল না অবশ্য। উদ্বোধনী জুটিতে ডি কক-আমলা যোগ করেন ৭৬ রান। আমলা ৩৫ রান করে ফিরলেও ডি কক তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি। তিন নম্বরে নেমে ফাফ দু প্লেসিসও করছিলেন সাবলীল ব্যাটিং। তবে ডি কক ৫৩ রান করে আউট হওয়ার পর ভেঙে পড়ে প্রোটিয়াদের ব্যাটিং লাইন।

ইনিংসে তৃতীয় খেলোয়াড় হয়ে রান আউট ইমরান
ডি ভিলিয়ার্সের দুর্ভাগ্যজনক রান আউটে যার শুরু। ফর্মহীনতায় ভোগা প্রোটিয়া অধিনায়ক ফেরেন মাত্র ১৬ রান করে। খানিক পর মিলারও (১) প্যাভিলিয়নে ফেরেন রান আউট হয়ে। চাপ কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করা দু প্লেসিস (৩৬) ফিরে গেলে দক্ষিণ আফ্রিকার সব আশাই শেষ হয়ে যায়। এক প্রান্ত আগলে রেখে শেষ পর্যন্ত ২০ রানে অপরাজিত থাকা জেপি দুমিনিকে শুধু দেখতে হয়েছে উইকেট হারানোর দৃশ্য।

লক্ষ্যটা বড় ছিল না। তারপরও ২৩ রানে একমাত্র হোঁচট খায় ভারত। টানা ২ ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি পাওয়া রোহিত শর্মা মাত্র ১২ রানে মরনে মরকেলের শিকার হন। এর পর দ্বিতীয় উইকেটে শিখর ধাওয়ান ও বিরাট কোহলির হাফসেঞ্চুরিতে সহজে জেতে ভারত। যদিও ধাওয়ান দলের সঙ্গে জয়ের বন্দরে ভিড়তে পারেননি। ৮৩ বলে ১২ চার ও ১ ছয়ে ৭৮ রানে ইমরান তাহিরের শিকার হন এ ওপেনার। ১২৮ রানের জুটি গড়েন তারা।

কোহলির সঙ্গে যুবরাজ সিং ক্রিজে থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন। ১০১ বলে ৭৬ রানে অপরাজিত ছিলেন কোহলি, আর যুবরাজ টিকে ছিলেন ২৩ রানে। ৩৮ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৩ রান করে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা।

এ জয়ে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে উঠার দ্বারপ্রান্তে থাকল ভারত।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :