কুম্বলের ছেড়ে যাওয়া সিংহাসনে শেবাগ!

কুম্বলের ছেড়ে যাওয়া সিংহাসনে শেবাগ!

লাঞ্ছনা আর অপমান নিয়ে কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়াতে হয়েছে অনিল কুম্বলেকে। তাঁর উপর কোহলির অনাস্থার বিষয়টি জানতে পারেন ভারতীয় দলের ক্রিকেট কোচ। পাশাপাশি, তাঁর মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই বোর্ডের তরফে কোচের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়ার বিষয়টিও ভালভাবে নেননি তিনি। তাছাড়া, কোচকে গালিগালাজও নাকি করেছিলেন কোহলি। এমন অবস্থায় সম্মানের সঙ্গেই ভারতীয় কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানো উচিত বলে মনে করেছেন কিংবদন্তি লেগস্পিনার অনিল কুম্বলে। যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর পর্যন্ত কোচ কুম্বলের চুক্তির মেয়াদ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, তবুও সসম্মানে প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।
এখন ভারতের কোচ হবেন কে? জানা যায়, শেবাগই বসতে যাচ্ছেন কুম্বলের ছেড়ে যাওয়া সিংহাসনে। এরআগে বিসিসিআই যখন কোচের জন্য বিজ্ঞাপন দিয়ে আবেদন করেছিল। সেসময়েই বোর্ড থেকে শেবাগকে আবেদন করতে বলা হয়েছিল। তিনি সেসময় মাত্র দু’লাইনের সিভি পাঠিয়েছিলেন বলে খবর বের হয়েছিলো। যদিও শেবাগ সেই কথা অস্বীকার করেন। বোর্ড থেকে কোচ নিয়োগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিটিকে (শচীন, সৌরভ এবং লক্ষ্মণ) জানানো হয়েছে, দ্রুত পরবর্তী কোচ নির্বাচনের বিষয়টি চূড়ান্ত করার জন্য। শেবাগ আইপিএল-এ কিংস ইলেভেন পঞ্জাব-এর মেন্টরের দায়িত্বও পালন করেছেন।

শেবাগ ছাড়াও ভারতীয় দলের কোচ হওয়ার দৌড়ে রয়েছে টম মুডি, রিচার্ড পাইবাসের নাম। পাইবাস বাংলাদেশে কোচিং করিয়েছেন। আর শ্রীলঙ্কার জাতীয় দলে দীর্ঘসময় কোচ ছিলেন মুডি। জন রাইট, গ্রেগ চ্যাপেল, গ্যারি কার্স্টেন এবং ডানকান ফ্লেচারের মতো বিদেশি কোচের পর দেশি কোচেরাই ভারত দলকে কোচিং করাচ্ছেন। বিরাট, ধোনিরাও দেশি কোচের পক্ষে রয়েছেন। সেই হিসেবে শেবাগ কোনও কারণে কোচ হতে ইচ্ছুক না হলে লালচাঁদ রাজপুত ও ডোড্ডা গণেশের নাম বিকল্প হিসেবে উঠে আসছে। অনুর্ধ্ব-১৯ ও জাতীয়-এ দলকে সাফল্যের সঙ্গে কোচিং করিয়েছেন রাজপুত। তাছাড়া রাজপুত কিংবা গণেশ কোচ হলে বোর্ডের অনেকেই মনে করছেন অধিনায়কের সঙ্গে ব্যক্তিত্বের সংঘাত ঘটবে না। যা কোহলি-কুম্বলের ক্ষেত্রে ঘটেছিল।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD