রাত ৪:৪০, বৃহস্পতিবার, ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি / আবারও দেখা যাবে রুবেল-কোহলি দ্বৈরথ!
আবারও দেখা যাবে রুবেল-কোহলি দ্বৈরথ!
জুন ১৪, ২০১৭

ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথের চেয়েও কী তবে এখন বাংলাদেশ-ভারত দ্বৈরথ বেশি উত্তেজনা ছড়ায়! ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের মধ্য দিয়ে দুই দেশের মধ্যে ক্রিকেট সম্পর্কে যে নমুন মাত্রা যোগ হয়, সেটা চলমান আজ অবধি এবং জ্যামিতিক হারেই বলা যায় বাংলাদেশ-ভারত ক্রিকেট বিরোধ বাড়ছে। তৈরি হচ্ছে স্নায়ুবিক উত্তেজনা। দুই দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত লড়াইয়ের ময়দানে লড়াই হয় ব্যাক্তিগত পর্যায়েও।

ভারত-বাংলাদেশ লড়াই মানেই যেন এখন অবধারিত দুই দেশের দুই ক্রিকেটারের ব্যক্তিগত লড়াইও। রুবেল হোসেন এবং বিরাট কোহলি। ভারত অধিনায়কের সঙ্গে বাংলাদেশের পেস বোলারের দ্বৈরথ সৃষ্টি হয়েছিল কিন্তু ২০০৮ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সময় থেকে।

কোহলি তখন ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক। সেই বিশ্বকাপের এক ম্যাচে রুবেলের সঙ্গে কোহলির উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়। এরপর দুজন আবার মুখোমুখি হন ২০১১ বিশ্বকাপে। সেবার অসাধারণ এক সেঞ্চুরি হাঁকান বিরাট কোহলি। অপরাজিত ১০০ রান করার পথে রুবেলের বিপক্ষে ১৫ বল খেলে ১৭ রান তোলেন তিনি।

২০১৪ সালের এশিয়া কাপে ফতুল্লায় আবারও মুখোমুখি হন কোহলি-রুবেল। এবারও কোহলির প্রাধান্য। ১২২ বলে ১৩৬ রান করে ভারতকে ৬ উইকেটে জেতানো কোহলি আউট হন রুবেলের বলেই। তবে আউট হওয়ার আগে রুবেলের বিরুদ্ধে মুখোমুখি হওয়া ১৬ বলে ১৯ রান করেন তিনি।

তিন তিনবারের এগিয়ে থাকা কোহলিকে ২০১৫ সালে ফিরিয়ে দিয়ে দারুণ প্রতিশোধ তোলেন রুবেল হোসেন। শুধু তাই নয়, মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে রুবেলের সামনে চরমভাবে অপমানিত হতে হয়েছিল তখনকার ভারতীয় ব্যাটসম্যান, বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। সারাজীবনই এই অপমান মনে রাখতে বাধ্য তিনি। নিঃসন্দেহে সময়ের বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি। তার ব্যাটের সামনে অসহায় হয়ে পড়ে যেকোনো বোলার। অথচ বাংলাদেশের রুবেল হোসেন যেন কোহলির যম।

২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের আগে থেকেই দুজনের মধ্যে ব্যক্তিগত বিরোধের বিষয়টি আলোচনায় আসে। ২০০৮ সাল থেকে চলে আসা ব্যক্তিগত দ্বৈরথের রেশ পুরোপুরি পড়ে মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে। কোয়ার্টার ফাইনালের সেই লড়াইয়ে রুবেলের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি বিরাট কোহলি। মাঠে নামার পর মাত্র ৮ বল খেলতে পেরেছিলেন। অবশেষে রুবেলের অফ স্ট্যাম্পের ওপর রাখা বলটি কোহলির ব্যাটে চুমু দিয়ে গিয়ে জমা পড়ে উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহীমের হাতে।

তিনি আউট হয়ে গেলেন ৩ রানে। কোহলিকে আউট করার পর বুনো উল্লাসে মেতে ওঠেন রুবেল হোসেন। কোহলির দিকে এমন একটা অঙ্গভঙ্গি করলেন, যেটা সত্যিই ভারতীয় এই ব্যাটসম্যানের জন্য অপমানজনক। ভারতীয় একটি মিডিয়া সেই ঘটনার কথা তুলে ধরেই লিখেছে, এই অপমান কোনোদিন হয়তো ভুলতে পারবেন না বিরাট কোহলি।

২০১৫ বিশ্বকাপের পরও রুবেল-কোহলি মুখোমুখি হয়েছিলেন। ভারতের বাংলাদেশ সফরের সময়। সেবার ২-১ ব্যবধানে ভারতের বিপক্ষে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় পায় বাংলাদেশ। তবে তিনবারের মুখোমুখিতে একবারও কোহলিকে আউট করতে পারেননি রুবেল হোসেন। প্রথমদিন তাসকিন, দ্বিতীয়দিন নাসির হোসেন এবং তৃতীয়দিন কোহলির উইকেট নেন সাকিব আল হাসান। তবে পুরো সিরিজেই নিষ্প্রভ ছিল কোহলির ব্যাট।

এবার চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে আবারও মুখোমুখি বিরাট কোহলি এবং রুবেল হোসেন। এবার সেই কোহলি ভারত জাতীয় দলের অধিনায়ক। রুবেল হোসেন দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পেসার। ২০০৮ সাল থেকে শুরু হওয়া দ্বৈরথের হাওয়া কী এবারও লাগবে বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে? ‘পাগলামি’ করা রুবেল যদি পাগলামি করে এদিনও কোহলিকে সাজঘরের পথ দেখিয়ে দিতে পারেন, তাহলে সেটা বরং বাংলাদেশেরই বিশাল লাভ।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :