দুপুর ১২:৩১, শনিবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে শেষ চারে রহমতগঞ্জ
ফেডারেশন কাপ ফুটবল
মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে শেষ চারে রহমতগঞ্জ
মে ২৭, ২০১৭

শাহারান হাওলাদারের জোড়া গোলে শক্তিশালী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে ৩-১ গোলের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে ফেডারেশন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ড সোসাইটি।
বিজয়ী দলের হয়ে শাহরান দুটি এবং ঘানাইয়ান স্ট্রাইকার ইসমাইল বাঙ্গুরা এক গোল করেছেন। ইনজুরি টাইমে মুক্তিযোদ্ধার হয়ে একমাত্র গোলটি পরিশোধ করেছেন বদলী খেলোয়াড় মতিউর রহমান।
আজ শনিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত কোয়ার্টার ফাইনালের শেষ ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধাকে পাড়া মহল্লার দল বানিয়ে দাপুটে জয় নিশ্চিত করে কামাল বাবুর শিষ্যরা। এ জয়ের ফলে সেমি-ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনীকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছে জায়ান্ট কিলার রহমতগঞ্জ।
শুরু থেকেই নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্ঠিত করা রহমতগঞ্জ ২৪ মিনিটে দারুন এক গোলের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয় । গোল পোস্টের সামনে জটলা থেকে ডি বক্সের ভেতর বল পেয়ে যায় দলের নাইজেরিয়ান ডিফেন্ডার মানডে ওসাগি। তার নেয়া প্লেসিং শটের বলটি ঝাপিয়ে পড়ে ফিরিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধার গোল রক্ষক উত্তম বরুয়া। ফিরতি বলে আবারো শট নিয়েছিলেন তিনি। তবে সেটিও গোল রক্ষকের হাতে লেগে দ্বিতীয় বারে লেগে দিক পরিবর্তন করে। এর আগেই অবশ্য অফসাইটে পড়ে যান তিনি।
ম্যাচের ৩২ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে রাশেদুল ইসলাম শুভর ক্রসের বল ডি বক্সের মধ্যে পেয়ে যান সতীর্থ মিডফিল্ডার শাহরান হাওলাদার। বল পেয়েই কৌনিক শটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন তিনি (১-০)।
৩ মিনিট পর ফের ডি বক্সে বল পান রহমতগঞ্জের নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার ইসমাইল বাঙ্গুরা। তার নেয়া প্লেসিং শট ফের ঠেকিয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধার গোল রক্ষক। ওয়ান টু ওয়ান পজিশনে ফিরতি বলে তিনি ফের হেড নেয়ার চেস্টা করলেও মাথার সঙ্গে বলের সংযোগ ঘটাতে ব্যর্থ হন।
দ্বিতীয়ার্ধে এক মাত্র গোলে পিছিয়ে পড়া মুক্তিযোদ্ধা গোলটি পরিশোধ করার চেস্টা করলেও উল্টো আরো দুটি গোল হজম করতে বাধ্য হয়েছে। ম্যাচের ৬১ মিনিটে শাহরান হাওলাদারের পাসের বলে জোড়ালো শটে গোল করেন বাঙ্গুরা। ফলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় রহমতগঞ্জ।
৬৭ মিনিটে শাহারান হাওলাদার ফের গোল করলে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় পুরানো ঢাকার দল।
নিরাপদ দুরত্বে পৌছে যাওয়ায় এরপর অবশ্য কিছুটা হাল্কা মেজাজে খেলতে শুরু করে রহমতগঞ্জ। এই সুযোগটি কাজে লাগানোর চেস্টা করে মুক্তিযোদ্ধা। তবে কয়েকটি নিস্ফলা আকমনেই সেটি সিমাবদ্ধ ছিল। ম্যাচের ইনজুরি টাইমে অবশ্য সান্তনার একটি গোল পরিশোধ করেছে মাসুদ পারভেজের শিষ্যরা। বদলী খেলোয়াড় মতিউর রহমান সতীর্থদের কাছ থেকে একেবারে ডি বক্সেই বল পেয়ে যান। যেটিকে জোড়ালো শটে সঠিক লক্ষ্যে পৌছাতে সক্ষম হন মতিউর।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :