বিকাল ৫:০৯, মঙ্গলবার, ২৪শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / খুলনাকে হারিয়ে ফাইনালে রাজশাহী
খুলনাকে হারিয়ে ফাইনালে রাজশাহী
ডিসেম্বর ৭, ২০১৬

খুলনা টাইটান্সকে ১২৫ রানে রানে বেঁধে রেখে ফাইনালের পথটা পরিস্কার করে রেখেছিলেন রাজশাহী কিংসের বোলাররা। পরে ব্যাটিং করতে নেমে সাব্বির রহমান ও আফিফ হোসেন দায়িত্বশীল ইনিংস ও জেমস ফ্রাঙ্কলিনের ক্যামিওতে ভর করে খুলনাকে ৭ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে উঠল ড্যারেন স্যামির দল। শুক্রবার সন্ধ্যায় ফাইনালে ঢাকার বিপক্ষে খেলবে রাজশাহী কিংস।
বুধবার টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে ৯ উইকেটে ১২৫ রান করে খুলনা। জবাবে ৮ বল বাকি থাকতেই জয় পায় রাজশাহী। ১২৬ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই মমিনুল হকের উইকেট হারায় রাজশাহী।
তবে আফিফ ও নুরুল হাসানের ২৯ রানের জুটিতে শুরুর ঘাটতিটা পুষিয়ে ওঠে কিংসরা। এরপর দলীয় ৩৪ রানে সোহানকে ফিরিয়ে দেন মোশাররফ হোসেন রুবেল। তবে সাব্বিরকে নিয়ে আরো ৩৩ রান যোগ করেন তরুণ আফিফ।
দলীয় ৬৭ রানে ২৬ রান করে আফিফ ফিরলেও ফ্রাঙ্কলিন-সাব্বির মিলে রাজশাহীর লাগামটা ধরে রাখেন। চতুর্থ উইকেট জুটিতে অবিচ্ছিন্ন থেকে এই দুজন যোগ করেন ৬২ রান।
এর আগে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে রাজশাহীর সামিত প্যাটেল আর কেসরিক উইলিয়ামসের আঁটসাট বোলিংয়ের সামনে অসহায় হয়ে একের পর এক উইকেট হারিয়ে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে মাত্র ১২৫ রান করে খুলনা।
ব্যাটিং করতে নেমে তৃতীয় ওভারেই বিপদে পড়ে খুলনা। সেই ওভার হাসানুজ্জামান ও আবদুল মজিদ রান আউটের ফাঁড়ায় পড়েন। প্রথম বলে হাসানুজ্জামান আর তৃতীয় বলে রান আউট হন আব্দুল মাজিদ। হাসান ৪ ও মজিদ ১১ রান করেন।
পরের ওভারে শুভাগত হোমকে আউট করে শুরুতেই ম্যাচটা রাজশাহীর দিকে ঘুরিয়ে দেন ফরহাদ রেজা। এরপর নিকোলস পুরান ও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বেশ ভালো প্রতিরোধ গড়েন। ৩৭ রানের জুটি বেধে দলকে কক্ষপথে ফেরানোর চেষ্টা করেন এই দুজন।
তবে সপ্তম ওভারে আফিফের বলে পুরান ফিরে গেলে প্রতিরোধ ভেঙে যায় খুলনা। ২২ রান করেন এই ব্যাটসম্যান। বেন হাওয়েল ফেরেন একাদশতম ওভারে। তবে ১৩তম ওভারে সামিত প্যাটেলের জোড়া আঘাতে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় খুলনা।
সেই ওভারের প্রথম বলে রিয়াদ ও পঞ্চম বলে কেভন কুপার আউট হলে রাজশাহীর জয়ের স্বপ্ন উজ্জল হয়। শেষের দিক আরিফুলের ধৈর্যশীল ইনিংসে একশ পেরোয় খুলনার স্কোর। দারুণ ব্যাটিং করেন এই ব্যাটসম্যান। ৩২ রানে অপরাজিত থাকেন আরিফুল।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
খুলনা টাইটান্স:২০ ওভারে ১২৫/৯ (আরিফুল ৩২, মাহমুদউল্লাহ ২২, নিকোলাস পুরান ২২, হাওয়েল ১২, মজিদ ১১; সামিত প্যাটেল ৩/১৯, আফিফ ১/৯, ফরহাদ রেজা ১/২৮, কেসরিক উইলিয়ামস ১/১৮)
রাজশাহী কিংস: ১৮.২ ওভারে ১২৯/৩ (সাব্বির ৪৩, ফ্রাঙ্কলিন ৩০, আফিফ ২৪, সোহান ১৪, মাহমুদউল্লাহ ১/১০, মোশাররফ রুবেল ১/২৬, কুপার ১/৩২)
ফল রাজশাহী কিংস ৭ উইকেটে জয়ী



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :