দুপুর ২:৪৬, বুধবার, ২৬শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / সিরিজ জিততে ইংল্যান্ডের চাই ২৭৮ রান
সিরিজ জিততে ইংল্যান্ডের চাই ২৭৮ রান
অক্টোবর ১২, ২০১৬

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ৫০ ওভারে ২৭৭/৬
ভালো শুরু এনে দিয়েছেন টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সাব্বির রহমান। শেষের দিকে মুশফিকুর রহিম ও মোসাদ্দেক হোসেনের দৃঢ়তাভরা ব্যাটিংয়ে লড়াইয়ের পুঁজি গড়েছে বাংলাদেশ।
সিরিজ জিততে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ড গড়তে হবে ইংল্যান্ডের।
ক্রিস ওকসের বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ৫৪ বলে অর্ধশতক করেছেন মুশফিকুর রহিম। এই মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায় লড়াইয়ের পুঁজি গড়ছে বাংলাদেশ।
দ্রুত তিন উইকেট হারানোয় রানের গতি কমে বাংলাদেশের। তবে মুশফিকুর রহিমের দৃঢ়তায় ৪১তম ওভারে দুইশ’ রানে পৌঁছায় স্বাগতিকরা।
ফুলটস বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন নাসির হোসেন (১০ বলে ৪)। ৩৮তম ওভারে আদিল রশিদের বলে মিডউইকেটে ক্যাচ দেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের স্কোর তখন ১৯২/৬।
স্টাম্পড হয়ে ফিরেন সাকিব আল হাসান (১০ বলে৪)। মইন আলির বল গ্লাভসে জমাতে পারেননি জস বাটলার। কিন্তু বল ছুটে গিয়ে আঘাত হানে স্টাম্পে। একটু এগিয়ে যাওয়া সাকিব সময়মতো পারেননি ফিরতে। ৩৬তম ওভারের প্রথম বলে বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার ফিরে যাওয়ার সময় বাংলাদেশের স্কোর ১৮৪/৫।
দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের মতো চল্লিশের ঘরে বিদায় নেন সাব্বির রহমানও (৪৬ বলে ৪৯)। ৩৩তম ওভারে আদিল রশিদের বলে উইকেটরক্ষক জস বাটলারের গ্লাভসবন্দি হন এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের স্কোর তখন ১৭৬/৪।
তামিম ইকবাল-মাহমুদউল্লাহর দ্রুত বিদায়ের কোনো প্রভাব দলের ওপর পড়তে দেননি সাব্বির রহমান ও মুশফিকুর রহিম। এই দুই ডান হাতি ব্যাটসম্যান দ্রুত রান তুলে দলকে নিয়ে যান ভালো অবস্থানে। ৬.৫ ওভারে আসে তাদের অর্ধশত রানের জুটি।
২১ থেকে ৩০ ওভারের মধ্যে তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহকে হারালেও এই সময়ে ওভার প্রতি সাতের বেশি রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা। ৩০তম ওভারে দেড়শ’ ছুয়ে ফেলে বাংলাদেশ।
টানা দুই ওভারে উইকেট নেন আদিল রশিদ। এই ইংলিশ লেগ স্পিনারের বলে ছক্কা হাঁকানোর পরেই শর্ট বলে জনি বেয়ারস্টোকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মাহমুদউল্লাহ (৭ বলে ৬)।
ইমরুল কায়েসের পর ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালও (৬৮ বলে ৪৫) ফিরেন চল্লিশের ঘরে গিয়ে। আদিল রশিদের বলে কাভারে জেমস ভিন্সকে ক্যাচ দেন বাংলাদেশের সেরা উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান।
বেন স্টোকসের বলে স্কয়ার লেগে বদলি ফিল্ডার লিয়াম ডসনকে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরেন ইমরুল কায়েস (৫৮ বলে ৪৬)। এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তাভরা ব্যাটিংয়ে তৃতীয় ওয়ানডেতে ভালো ভিত পায় বাংলাদেশ।
তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েসের অর্ধশত রানের উদ্বোধনী জুটিতে শুরুটা ভালো করে বাংলাদেশ। সতর্ক ব্যাটিং করেন তামিম। একাদশ ওভারে ছক্কা হাঁকিয়ে দলের রান ৫০ পূর্ণ করা ইমরুল সুযোগ পেলেই চড়াও হন।
তামিম ও ইমরুলের দৃঢ়তায় কোনো উইকেট না হারিয়ে প্রথম ১০ ওভারে ওভারপ্রতি ৪.২০ করে রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা।
বাংলাদেশের ইনিংসের শুরুতে সতর্ক ব্যাটিং করেন তামিম। আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেট খেলেন ইমরুল। দুই ব্যাটসম্যানই মনোযোগ দেন উইকেট ধরে রাখায়।
সকাল থেকে কয়েক দফায় থেমেছে বৃষ্টি। নেমেছে আবার। ম্যাচ হওয়া নিয়েই শঙ্কা থাকলেও টস হতে দেরি হয়েছে মাত্র মিনিট দশেক। টস জিতে বোলিং নিয়েছেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জস বাটলার।
টসের সময় অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা জানালেন, জিতলে বোলিং নিতেন তিনিও। আগে ব্যাটিংয়েও অবশ্য আপত্তি নেই তার। আশা করছেন, পরে স্পিন ধরবে উইকেটে।
বাংলাদেশ দলে আগের একাদশ থেকে পরিবর্তন নেই একটিও। ইংল্যান্ড দলে পরিবর্তন দুটি। জেসন রয় ফিট নন, পরিবর্তে এসেছেন স্যাম বিলিংস। পেসার ডেভিড উইলির জায়গায় ফিরেছেন ফিট হওয়া লিয়াম প্লাঙ্কেট।
বিলিংসকে নিয়ে ইংল্যান্ড একাদশে উইকেটকিপার চারজন! অধিনায়ক জস বাটলারের সঙ্গে বিলিংস, জনি বেয়ারস্টো ও বেন ডাকেট।
বাংলাদেশ দল: মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মোসাদ্দেক হোসেন, মাহমুদউল্লাহ, নাসির হোসেন, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :