সন্ধ্যা ৭:৫৮, শুক্রবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / জাতীয় লিগে কাপালির সেঞ্চুরি
জাতীয় লিগে কাপালির সেঞ্চুরি
অক্টোবর ৯, ২০১৬

জাতীয় ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচে দারুণ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন সিলেট বিভাগের অধিনায়ক অলক কাপালি। চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে প্রথম দিনেই দারুণ এ সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। তবে মাত্র চার রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছেন এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আলোড়ন সৃষ্টি করা আব্দুল মজিদ।

শনিবার ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে টস জিতে সিলেটকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় চট্টগ্রাম। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা খারাপ হলেও দুই অভিজ্ঞ তারকার ব্যাটে ভালো অবস্থানে রয়েছে সিলেট। অধিনায়ক অলক কাপালির সেঞ্চুরি ও রাজিন সালেহর হাফ সেঞ্চুরিতে দিন শেষে ২৮১ রান সংগ্রহ করছে তারা।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০৫ রান করেন কাপালি। ১৯৪ বলে ৭টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া ১৩৪ বলে ৫১ রান করেন রাজিন। চট্টগ্রামের পক্ষে ২টি উইকেট নিয়েছেন ইফতেখার সাজ্জাদ।

দিনের অপর দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে সাভারের বিকেএসপিতে রাজশাহী বিভাগের বিপক্ষে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামেন রংপুর বিভাগ। তবে বৃষ্টি ও আলোকস্বল্পতার কারণে এদিন খেলা গড়ায় মাত্র ৫৪.২ ওভার। ফরহাদ রেজার বোলিং তোপে শুরু থেকেই দারুণ চাপে থাকে রংপুর। তবে আরিফুল হক, তানভীর হায়দার ও সোহরাওয়ার্দি শুভর ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় তারা। দিন শেষে ৬ উইকেটে ১৭২ রান করে দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৩ রানের ইনিংস খেলেন তানভীর। শুভ ৪৬ রানে অপরাজিত রয়েছেন। এছাড়া আরিফুল করেন ৩৯ রান। রাজশাহীর পক্ষে ৪৫ রানে ৩টি উইকেট নেন ফরহাদ রেজা।

প্রথম স্তরের ম্যাচে কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একাডেমী মাঠে বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামে ঢাকা বিভাগ। শুরুটাও করে তারা দুর্দান্ত। দুই ওপেনার আব্দুল মজিদ ও রনি তালুকদারের দারুণ ব্যাটিংয়ে ওপেনিং জুটিতে ১৭৬ রানের সংগ্রহ পায় তারা। তবে এ জুটি ভাঙ্গার পর মনির হোসেনের ঘূর্ণিতে পরে দিনশেষে পাঁচ উইকেটে ২৮৩ রান সংগ্রহ করে দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯৬ রান করেন মজিদ। ১৪৩ বলে ১০টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া ১১০ বলে ৭টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৮৪ রান করেন রনি। বরিশালের পক্ষে ৮০ রানে ৪টি উইকেট নেন মনির।

প্রথম স্তরের অপর ম্যাচে কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে খুলনা বিভাগ। তবে শুরুতেই ঢাকার পেসারদের দাপটে ৬৭ রানেই পাঁচ উইকেট দারুণ চাপে পড়ে তারা। তবে নুরুল হাসান সোহান ও জিয়াউর রহমানের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দিনশেষে পাঁচ উইকেটে ১৫৬ রান করে তারা।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৪ রানে অপরাজিত থাকেন সোহান। এছাড়া ৩৯ রানে অপরাজিত রয়েছেন জিয়াউর। ঢাকা মেট্রোর পক্ষে ২টি করে উইকেট পেয়েছেন শহিদুল ইসলাম ও সৈকত আলী।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :