ভোর ৫:০৯, সোমবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / শিরোপার আরও কাছে আবাহনী
শিরোপার আরও কাছে আবাহনী
জুন ২০, ২০১৬

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে হারিয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জয়ের পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল আবাহনী লিমিটেড। বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে সুপার লিগের চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে রূপগঞ্জকে ৬০ রানে হারায় তামিম ইকবালের দল। এক ম্যাচ কম খেলে রূপগঞ্জের সমান ২০ পয়েন্ট এখন আবাহনীর।

আবাহনীর করা ২৯১ রান তাড়া করতে নেমে ৪৪.৪ ওভারে ২৩০ রানে অলআউট হয় রূপগঞ্জ। সর্বোচ্চ ৭০ রান করেন আসিফ আহমেদ রাতুল। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

বড় লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি রূপগঞ্জ। ৩৫ রানের মধ্যে টপঅর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান জহুরুল ইসলাম, জুনায়েদ সিদ্দিকী ও সৌম্য সরকার বিদায় নেন। নাহিদুল ইসলামকে নিয়ে যা একটু হাল ধরেন মোহাম্মদ মিঠুন। ৩৬ রান করে নাহিদুল সাকিব আল হাসানের বলে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের হাতে স্ট্যাম্পড হলে দলীয় ৯৪ রানে ভাঙে ইনিংসের সর্বোচ্চ রানের (৫৯) জুটিটি। দলের হাল ধরা মিঠুন ৫৫ রান করে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের অফস্পিনে লং-অফে দাঁড়িয়ে থাকা মোসাদ্দেকের হাতে ক্যাচ তুলে দিলে পুরো ওভার ব্যাটিং করাই কঠিন হয়ে পড়ে দলটির জন্য। শেষ দিকে আসিফ আহমেদ রাতুল একা লড়াই করে হারের ব্যবধান কমান।

ব্যাট হাতে অর্ধশতকের পর বল হাতেও দারুণ সফল ছিলেন আবাহনীর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। একাই পাঁচ উইকেট নেন এই অফস্পিনার। সাকিব আল হাসান ও তাসকিন আহমেদ দুটি করে উইকেট নেন।

সকালে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের ব্যাটে দুর্দান্ত শুরু পায় আবাহনী। ওপেনিং জুটি থেকে আসে ৭৬ রান। তাইজুল ইসলামের বলে জহুরুল ইসলামের হাতে তামিম ইকবাল (৩৩) ক্যাচ তুলে দিলে ভাঙে জুটিটি। এরপর বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি লিটনও। দলীয় ৯২ রানের মাথায় অর্ধশতকের পর তাইজুলের বলেই সাজঘরে ফেরেন লিটন দাস। আউট হওয়ার আগে ৬৯ বলে ৬টি চারের সাহায্যে করেন ৫১ রান।

দলীয় ১০৪ ও ১১২ রানে নাজমুল হাসান শান্ত ও দিনেশ কার্তিকের উইকেট তুলে নিয়ে আবাহনীর স্কোরকার্ডের চেহারা খারাপ করে দেন রূপগঞ্জের বোলাররা। শান্তকে ফেরান আসিফ আহমেদ। কার্তিক ফেরেন তাইজুলের দারুন এক ঘূর্ণিতে। মোসেদ্দেক হোসেন সৈকতকে নিয়ে দলের হাল ধরেন সাকিব আল হাসান। ১৪০ রানের দুর্দান্ত জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের ভিত তৈরি করে দেন এ দুই ব্যাটসম্যান। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৯০ রান করে আবাহনী।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন মোসাদ্দেক। ৫৫ বলে ৮টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। ৫৭ বলে ৬টি চার ও ২টি ছক্কায় ৬৬ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন সাকিব। এছাড়া ৬৯ বলে ৬টি চারে ৫১ রান করেন লিটন।

রূপগঞ্জের পক্ষে তাইজুল ইসলাম ৪৫ রানে ৩টি উইকেট নিয়ে সেরা বোলার। এছাড়া আসিফ আহমেদ ৫৭ রানে নেন ৩টি উইকেট।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :