সন্ধ্যা ৬:০৩, শুক্রবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / রোনালদোর জোড়া গোলে কোনোমতে শেষ ষোলোয় পর্তুগাল
রোনালদোর জোড়া গোলে কোনোমতে শেষ ষোলোয় পর্তুগাল
জুন ২৩, ২০১৬

অসাধারণ! অভিভূত হয়ে অলিম্পিক লিওর হাজার হাজার দর্শক এক রোমাঞ্চকর ম্যাচের সাক্ষী হয়ে রইলো। কী ছিল না পর্তুগাল-হাঙ্গেরির ম্যাচে? একবার হাঙ্গেরি গোল করে তো পরক্ষণেই সেই গোল শোধ দেয় পর্তুগাল। শেষ পর্যন্ত ৩-৩ গোলের ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় দুই দলকে। ইউরো ফুটবলের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে কোনো ম্যাচ না জিতেও ইউরোর শেষ ষোলোতে পৌঁছে গেল রোনালদোর পর্তগাল। অন্যদিকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই পরের রাউন্ড নিশ্চিত করলো হাঙ্গেরি।

ম্যাচের শুরু থেকেই যেন উত্তেজনা চেপে বসে দুদলকে। ১১ মিনিটেই গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন নানি। কিন্তু এলিসিউর বাড়ানো বল বারের উপর দিয়ে মারেন এই ফরোয়ার্ড। নানি মিস করলেও ১৯ মিনিটে মিস করেননি হাঙ্গেরির স্ট্রাইকার গেরা। ডিবক্সের ভেতর জটলা থেকে গোল করে হাঙ্গেরিকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন তিনি। ইউরো ফুটবলের ইতিহাসে দ্বিতীয় বয়স্ক ফুটবলার হিসেবে ইউরো টুর্নামেন্টে গোল করলেন গেরা।

২৯ মিনিট ডি বক্সের ৩৫ গজ দূর থেকে ফ্রি কিক পায় পর্তুগাল। কিন্তু এবারো গোল করতে ব্যর্থ হলেন রোনালদো। এখন পর্যন্ত কোনো টুর্নামেন্টে ফ্রি কিক থেকে গোল করতে পারেননি এই রিয়াল তারকা। একের পর এক আক্রমণে যখন হাঙ্গেরির ডিফেন্সে চির ধরার উপক্রম তখন সেটিকে কাজে লাগিয়েই রোনালদোর বাকানো শটে পা ছুঁয়ে দলকে সমতায় ফেরান নানি।

বিরতি থেকে ফিরেও যেন গোলক্ষুধায় মরিয়া হয়ে ওঠে দুদল। ৪৭ মিনিটেই ডিবক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত এক ফ্রি কিক থেকে গোল করে হাঙ্গেরিকে ২-১ গোলে এগিয়ে দেন অধিনায়ক জুজ্যাক। কিন্তু এই গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই তিন মিনিট পর আবারো ম্যাচে ফিরে আসে পর্তুগাল। জাও মারিওর ক্রসে ব্যাকহিলে অসাধারণ গোল করে দলকে ২-২ গোলে সমতায় আনেন রোনালদো। এর মাধ্যমেই একমাত্র ফুটবলার হিসেবে চারটি ইউরো টুর্নামেন্টে গোল করার কৃতিত্ব দেখালেন রোনালদো।

রোমাঞ্চের তখনো অনেক বাকি ছিল। রোনালদোর গোলের ঠিক ৫ মিনিট আবারো জুজ্যাকের গোল ম্যাচে ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে যায় হাঙ্গেরি। কিন্তু পর্তুগালও যে বসে থাকার পাত্র নয়। এই ম্যাচ হারলেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিতে হবে পর্তুগালকে। এমন চাপের মধ্যে থেকেই ৬২ মিনিটে কোয়ারেসমার ক্রস থেকে হেডে গোল করে দলকে ৩-৩ সমতায় ফেরান সেই রোনলদো।

৬৪ মিনিটেই আবার এগিয়ে যেতে পারতো হাঙ্গেরি কিন্তু এলেকের শট বারে লেগে ফিরে আসলে গোলবঞ্চিত হন হাঙ্গেরিয়ানরা। ম্যাচের বাকিটা সময় বল নিজেদের দখলে রাখলেও ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় পর্তুগালকে। অন্যদিকে তারকাবিহীন হাঙ্গেরি দল গ্রুপ সেরা হয়ে পরের রাউন্ড নিশ্চিত করে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :