রাত ৪:৫৩, সোমবার, ২৬শে মার্চ, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / আর্জেন্টিনার সামনে ফাইনালের বাধা যুক্তরাষ্ট্র
আর্জেন্টিনার সামনে ফাইনালের বাধা যুক্তরাষ্ট্র
জুন ২০, ২০১৬

টানা দুটি কোপা আমেরিকার ফাইনালে ওঠার সামনে দাঁড়িয়ে আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপের ফাইনালে জার্মানির কাছে হারের পর সর্বশেষ কোপা আমেরিকার ফাইনালও খেলেছিল লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। সেবারও চিলির কাছে হেরে শিরোপা অধরা থেকে যায় আর্জেন্টাইনদের। কোপার শতবর্ষী উৎসব এবার বসেছে লাতিনের বাইরে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। এখান থেকে কি শিরোপা জিতে নিতে পারবে লিওনেল মেসিরা?

তার আগে যে আর্জেন্টিনার সামনে সবচেয়ে বড় বাধা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র! ইউর্গেন ক্লিন্সম্যানের শিষ্যদের বাধা পার হয়ে কী আর্জেন্টিনা পারবে ফাইনালে পৌঁছাতে! সেই শঙ্কা এবং সম্ভাবনার দোলাচলে দুলছে আর্জেন্টাইন সমর্থকরা। কোপা আমেরিকার প্রথম সেমিফাইনালে বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার সকাল ৭টায় স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা।

এর কারণও আছে। আর্জেন্টাইনদের ভয় যুক্তরাষ্ট্র দলকে নয়। একজনমাত্র ব্যাক্তিকে। তিনি ইয়ুর্গেন ক্লিন্সম্যান। সাবেক এই জার্মান কোচের কৌশলের কাছে হেরেই ২০০৬ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল আর্জেন্টিনাকে। সেই ক্লিন্সম্যান এখন যুক্তরাষ্ট্র দলের মূল কান্ডারি। দলটি যে ফুটবলে জাগরণ তৈরী করেছে, তাতে এই জার্মানের অবদানই সবচেয়ে বেশি।

সবচেয়ে বড় কথা ক্লিন্সম্যান কিন্তু হুমকিটা দিয়েই রেখেছেন। শুধু আর্জেন্টিনাকে নয়, কোপায় টিকে থাকা বাকি সব দলকেই। সরাসরিই তিনি বলে দিয়েছেন, কোপার শিরোপা জেতা এখন আমেররিকার জন্য কঠিন কিছু নয়। যেভাবে ছেলেরা খেলে আসছে, সেভাবে খেলতে থাকলে শিরোপা জয় সময়ের ব্যবধান মাত্র। শিরোপা জিততে না পারার তো কোন কারণই এখন দেখছি না।’

হুমকিটা অন্য যে কারও চেয়ে আর্জেন্টিনার গায়েই লাগার কথা বেশি। কারণ, সেমিফাইনালে যে তারা মার্কিনিদের মুখোমুখি! এখনও পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ফুটবলে দু’দল মুখোমুখি হয়েছে মোট ১০ বার। এর মধ্যে ৬ বারই জিতেছে আর্জেন্টিনা। ২টি ড্র এবং হেরেছে ২টিতে। অথ্যাৎ পরিসংখ্যানের বিচারে এগিয়ে আর্জেন্টিনাই।

তবে, সবচেয়ে বড় কথা দুটি কিন্তু হেরেছিল। সেই সংখ্যাটা যদি এই ম্যাচেই আরও এক বৃদ্ধি পায়! শুধু তাই নয়, সর্বশেষ যে দু’বার আমেরিকার মুখোমুখি হয়েছে আর্জেন্টিনা, একবারও জিততে পারেনি। দু’বারই হয়েছে ড্র। ২০০৮ এবং ২০১১ সালে- দুটিই ছিল আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ। প্রথমবার গোলশূন্য ড্র এবং দ্বিতীয়বার ১-১ গোলে ড্র।

কোপা আমেরিকায় আমেরিকা এবং আর্জেন্টিনা মুখোমুখি ২ বার। এর মধ্যে দু’দলই সমান সমান। একটি করে ম্যাচ জিতেছে উভয় দলই। প্রথমবার ১৯৯৫ সালে আর্জেন্টিনা হেরেছিল ৩-০ গোলে। ২০০৭ কোপা আমেরিকায় ৪-১ গোলে হারিয়ে সেই পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল আর্জেন্টিনা। তবে, আগের সেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখন আর নেই। এখকার দলটি অনেক উন্নত, অনেক এগিয়ে। বিশ্বের যে কোন শক্তিশালি দলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে তারা।

তবে আর্জেন্টাইনদের জন্য সুখের কথা হলো, মেসি ফিরেছে পুরোপুরি মেসির রূপে। ইনজুরি থেকে ফিরে ভেনেজুয়েলার বিপক্ষেই প্রথম সেরা একাদশে থেকে খেলতে নেমেছিলেন তিনি। একটি গোলও করেছেন। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ৫৪ গোল করে মেসি ছুঁয়ে ফেললো বাতিস্তুতাকে। আর এক গোল করতে পারলেই আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার সম্মানটি নিজের নামের পাশে লিখে নেবেন তিনি।

শুধু মেসিই নয়, আর্জেন্টিনা দলটিই এখন পুরোপুরি ফর্মে। ভেনেজুয়েলার জালে ৪ বার বল জড়িয়েছেন আর্জেন্টাইন ফুটবলাররা। গ্রুপ পর্বেও দুর্দান্ত খেলে এসেছে। সেমিফাইনালে তাই মেসি এবং তার সতীর্থরা সেই ফর্ম ধরে রাখতে পারলে হয়তো ইয়ুর্গেন ক্লিন্সম্যানের কোন কৌশলই আর কাজে আসবে না।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :