সকাল ৭:১০, রবিবার, ৩০শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ হকি / আবাহনীকে হারিয়ে শীর্ষেই রইলো ঊষা
আবাহনীকে হারিয়ে শীর্ষেই রইলো ঊষা
জুন ১৮, ২০১৬

আবাহনীকে ৩-২ গোলে হারিয়ে গ্রিন ডেল্টা ইনস্যুরেন্স প্রিমিয়ার হকির রাউন্ড রবিন লিগ শেষে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষেই রইলো ঊষা ক্রীড়া চক্র। আজ শনিবার মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে ঊষার টিমওয়ার্ক, ফরোয়ার্ড পুষ্কর খিসা মিমোর ফর্ম ও অ্যাপ্রোচ গড়ে দেয় জয়-পরাজয়ের ব্যবধান।
খেলায় চাপ সৃষ্টি করে ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই প্রথম পেনাল্টি কর্নার আদায় করে নেয় আবাহনী; তবে মো. ইরফানের করা ড্র্যাগটি ঊষার একজন ডিফেন্ডারের স্টিকে লেগে প্রতিহত হয়। এরপর ঊষাও পাল্টা আক্রমণে গিয়ে পেয়েছিল একটি গোলের সুযোগ। ৬ মিনিটে আলিম বেলালের রিভার্স স্টিকের হিট ফিরিয়ে দেন আবাহনী গোলরক্ষক অসিম গোপ।
এরপরেই ১৫ মিনিটে প্রথম পেনাল্টি কর্নারে এগিয়ে যায় ঊষা। কৃষ্ণ কুমারের পুশ, সারোয়ারের স্টপের পর ড্র্যাগ স্পেশালিস্ট পাকিস্তানি ডিফেন্ডার আলিম বেলালের ড্র্যাগ ঠাঁই নেয় পোস্টের ডান কোনার জালে।

আবাহনী থিতু হওয়ার আগেই আবার আঘাত হানে ঊষা। ২০ মিনিটে দ্রুতগতির এই পাল্টা আক্রমণের উৎস ছিলেন রেজাউল করিম বাবু। নিজেদের আর্চ থেকে তিনি বল দেওয়া-নেওয়া করেন কৃষ্ণ কুমারের সঙ্গে। মাঝে গ্যাপে অবস্থান নেন পুস্কর খিসা মিমো, কৃষ্ণর ফরোয়ার্ড পুশ রিভার্স হিটে বোর্ডে বল আছড়ে ফেলেন মিমো। এরমধ্য দিয়ে দুই গোলের অগ্রগামিতা নেয় ঊষা।

তবে হতোদ্যম হয়নি আবাহনী। মাঝমাঠে মো. ইরফান, শাফকাত রাসুল, শাকিল আব্বাসি ও রোম্মান সরকারকে সামনে রেখে পথ খুঁজতে থাকে আবাহনী। এদের সহায়তায় তারা আদায় করে নেয় পাঁচটি পেনাল্টি কর্নার। এর মাঝে ৩২ মিনিটে শেষটিতে শাফকাত রাসুল, বিপ্লব ও কাশিফ আলির কম্বিনেশনে ব্যবধান কমায় আবাহনী। এবার কাশিফ আলি বল উপরে তোলেননি, টার্ফে গড়ানো এক হিটে তিনি পরাস্ত করেন নিপ্পন ও পোস্ট আগলানো আলিম বেলালকে।

দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলই অবলম্বন করে বাড়তি সতর্কতা। সুযোগ পেয়ে কাজে লাগাতে হবে এমন ধারায় খেলতে খেলতে তৃতীয় গোলটি করে বসে ঊষা। ২৫ গজের লাইন থেকে বল ঠেলে দিয়েছিলেন পাকিস্তানি মিডফিল্ডার আলি শান। কৃষ্ণ কুমার বল নিয়ে বক্সে ঢুকে ব্যাক স্টিকে বল তৈরি করে দেন পুস্কর খিসা মিমোকে। কোনাকুনি হিটে নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোলটি করেন মিমো।

আবাহনীকে আবারও খেলায় ফিরিয়ে আনার পথে আনেন কাশিফ আলি, ৫০ মিনিটে প্রথম গোলের কম্বিনেশনেই আসে আবাহনীর দ্বিতীয় গোলটি। এবারও বল নিচেই রাখেন কাশিফ আলি; বিভ্রান্ত হন নিপ্পন।

৬০ মিনিটের মাথায় দুইবার গোল করতে ব্যর্থ হয় ঊষা। প্রথমে নাইউদ্দিনের পাসে ফ্রিক করতে ব্যর্থ হন হাসান যুবায়েন নিলয় এবং এরপরে মাহবুব হোসেনের পাসে নিলয়ের হিট প্রতিহত করেন অসিম গোপ। খেলার শেষ দিকে শাকিল আব্বাসির হিটে শাকসুদ আলম হাবুলের ফ্লিক ঊষার ক্রস পোস্টে লেগে ফিরে আসে।

এ জয়ের ফলে ১১ ম্যচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে সুপার সিক্স খেলা শুরু করবে ঊষা। ২৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে মেরিনার্স। ২৬ পয়েন্ট মোহামেডান ও আবাহনী উভয়েরই সংগ্রহ। তবে গোল পার্থক্যে মোহামেডান তৃতীয় ও আবাহনী চতুর্থ। ১৬ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ এসসি পঞ্চম, ওয়ান্ডারার্সের পয়েন্টও ১৬ তবে তারা ষষ্ঠ অবস্থানে। এ ছয়টি দল খেলবে সুপার সিক্স পর্ব।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :