রাত ৩:১৬, শুক্রবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / আত্মবিশ্বাসীদের নিয়ে কাজ করবেন সায়মন
আত্মবিশ্বাসীদের নিয়ে কাজ করবেন সায়মন
জুন ১৩, ২০১৬

আত্মবিশ্বাসীদের জন্য কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন হাইপারফরম্যান্স ইউনিটের কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেওয়া অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক সায়মন হেলমট। সোমবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে প্রথমবারের মতো কথা বলেন তিনি।
৪৪ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ান জাতীয় দলে খেলার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাস লালন করা খেলোয়াড়দের নিয়ে কাজ করবেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘প্রতিভা সব ভিন্ন উপায়ে, আকার এবং আয়তনের আসে। এটি দেখতে পাওয়া সহজ নয়। প্রতিভা চিহ্নিতকরণের কাজটি একটি বড় দক্ষতা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আমরা তাদের জন্যেই কাজ করবো যারা বিশ্বাস করে, তারা দেশের জন্যে ক্রিকেট খেলবে।’
নির্দিষ্ট কারও নাম ধরে কাজ করতে নারাজ এই অস্ট্রেলিয়ান। এটাকে তিনি ভয়ানক পরিণতি মনে করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি নির্দিষ্ট কারও নাম নিয়ে কাজ করবো না। এটার পরিণতি ভয়ানক হতে পারে। এইচপি প্রোগ্রামে ক্রিকেটারদের স্কিল, অভিজ্ঞতা ও প্রতিযোগীতামূলক কর্মকাণ্ড নিয়ে কাজ করা হয়। যেখানে অভিজ্ঞ কোচ দেশ ও দেশের বাইরের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন। এখানে ক্রিকেটারদের দায়িত্ব ও নিয়ম মেনে কাজ করানো হবে। বয়স এখানে কোনও প্রভাব ফেলবে না। ১৫, ১৬ ও ২৫ কিংবা ৩০। মানুষের জীবনে যেকোনও সময়ে তার প্রতিভা বিকশিত হতে পারে।’
বাংলাদেশে কাজ করার আগে এই অস্ট্রেলিয়ান বর্তমানে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো রেড স্টিলের প্রধান কোচ ও আইপিএল-এ সানরাইজার্স সহকারী কোচের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ২০০৭ সালে ভিক্টোরিয়া বুশ রেঞ্জার্স হাইপারফরম্যান্স স্কোয়াডের ম্যানেজার ছিলেন। ২০০৮ সালে ভারত সফরের অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলেরও কোচ ছিলেন তিনি। এছাড়া ২০১১-১২ সালে প্রথম বিগ ব্যাশ টি-টোয়েন্টি লিগে মেলবোর্ন রেনেগেডসের হেড কোচের দায়িত্ব পালন করেন।
বাংলাদেশ কাজ করতে পেরে সম্মানিতবোধ করছেন মনে করে তিনি বলেন, ‘আমি বাংলাদেশ ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত পেরে সম্মানিতবোধ করছি। গত ২০ বছর আমি ছোট ও বড় সব ধরণের দলগুলোকে নিয়ে কাজ করেছি। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের দল মেলবোর্ন রেনেগেডস ও হোবার্ট হ্যারিকেন্সের সঙ্গে কাজ করেছি। সম্প্রতি সানরাইজার্স হায়দরাবাদের সঙ্গে কাজ করেছি যেখানে মুস্তাফিজুর রহমান ছিল। আমি সিপিএলে ত্রিনিদাদ ও টোবাগের সঙ্গেও কাজ করবো। আমি নিশ্চিত করেই বলতে পারি জাতীয় দলে, জাতীয় পর্যায় ও জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে কাজ করে কোচিংয়ে আমি বেশ অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি।’
তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমি জাতীয় দলের কোচ চন্ডিকার সঙ্গে আগে থেকেই পরিচিত। সে তখন নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে আর আমি ভিক্টোরিয়ার হয়ে কাজ করতাম।’
নিজের পরিকল্পনা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সায়মন বলেন, ‘আমি এরই মধ্যে কোচের সঙ্গে আলোচনা করেছি। বিসিবির কর্মকর্তাদের সঙ্গেও আলোচনা করেছি। বাংলাদেশের ক্রিকেটে সামনে নিয়ে যেতে আমি কাজ করবো। আগামীতে বেশ কয়েকটি বড় টুর্নামেন্ট যেমন, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি রয়েছে। তার কিছুদিন পরই বিশ্বকাপ। এছাড়া এ সময়ে অনেক সিরিজ হবে। এজন্য আমাদের তরুণ কিছু খেলোয়াড়কে ঘঁষে-মেজে ঠিক করতে হবে। একই সঙ্গে অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের সঠিক পথে নিয়ে আসতে হবে। তাহলে আগামী কয়েক বছর বাংলাদেশ সঠিক পথে থাকবে। এ কাজটাই এজন্যই এ দায়িত্বটি আমাকে বেশি উৎসাহিত করছে’
বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের ব্যাপারে ধারনা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের দুজন খেলোয়াড়দের নিয়ে কাজ করেছি। সাকিবের সঙ্গে মেলবোর্ন রেনেগেডসে ও মুস্তাফিজের সঙ্গে আইপিএলে।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :