দুপুর ১২:৪৪, মঙ্গলবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / অনিবার্য শাস্তির মুখে তামিম
অনিবার্য শাস্তির মুখে তামিম
জুন ২১, ২০১৬

অর্থ দণ্ড কিংবা ম্যাচ থেকে বহিষ্কার- যাই হোক না কেন, কিছু একটা হবে। অবস্থাদৃষ্টে পরিষ্কার, অনিবার্য্ শাস্তির খাঁড়া ঝুলছে তামিম ইকবালের ওপর। তার বিরুদ্ধে রাজ্যের অভিযোগ আম্পায়ারদের। সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে, আম্পায়ারদের দুই পৃষ্ঠার অভিযোগনামা তামিমের বিরুদ্ধে। যার ওপর ভিত্তি করে ম্যাচ রেফারি মন্টু দত্তও শেষ পর্যন্ত নতুন রিপোর্ট জমা দিয়েছেন।

ওই রিপোর্টেই তামিমের ফেঁসে যাবার সম্ভাবনা প্রচুর। কাজেই ধরে নেয়া যায়, গত ১২ জুন বিকেএসপিতে প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচে একটি স্ট্যাম্পিংয়ের জোরালো আবেদন নাকচের পর আবাহনী অধিনায়ক আম্পায়ারের সঙ্গে যে আচরণ করেছেন, তা আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট পরিপন্থী। যার শাস্তি তাকে পেতেই হবে।

আগামীকাল বুধবার বিকেলের মধ্যেই জানা যাবে শেষ পর্যন্ত কি শাস্তি হচ্ছে তামিমের। তবে যে চারজনকে নিয়ে গড়া কমিটির ওপর ১২ জুন বিকেএসপিতে অসমাপ্ত আবাহনী-প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচের ভাগ্য- সেই কমিটির অন্যতম সদস্য রকিবুল হাসানের কথা শুনে মনে হচ্ছে, তামিমের ভাগ্যে বড় ধরনের কোন শাস্তিই অপেক্ষা করছে।

কারণ আজ (মঙ্গলবার) ওই কমিটির প্রথম সভা শেষে জাতীয় দলের সাবেক এ অধিনায়ক জানান, তামিম ইকবালের বিরুদ্ধে অনেকগুলো অভিযোগ। তাই তাকেও শুনানিতে ডাকা হয়েছে। তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তার কথাও শোনা হয়েছে।

গত ১৯ জুন বিসিবি পরিচালক পর্ষদের সভায় বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন চারজনের একটি কমিটি গঠন করে দেন ১২ জুনের ম্যাচটি সম্পর্কে একটি সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য। নাজমুল করিম টিংকু, শেখ সোহেল, রকিবুল হাসান ও আতহার আলীকে নিয়ে গড়া ওই কমিটির ওপর আবাহনী-প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচের ভাগ্য ও তামিম ইস্যু খুঁটিয়ে দেখার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আজ (মঙ্গলবার) দুপুরে শের-ই বাংলায় ওই কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। যেখানে আম্পায়ার মন্টু দত্ত নতুন রিপোর্ট জমা দিয়েছেন। উল্লেখ্য, প্রাইম দোলেশ্বর ব্যাটসম্যান রকিবুল হাসানের বিরুদ্ধে স্ট্যাস্পিংয়ের জোরালো আবেদনে সাড়া না পেয়ে আম্পায়ারের সঙ্গে বচসায় লিপ্ত হন তামিম। আম্পায়ারদের সঙ্গে তার বাজে আচরণের ছবি পত্রিকায়ও ছাপা হয়েছে। বিভিন্ন চ্যানেলের ভিডিও ফুটেজেও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সে সত্য।

এখন প্রশ্ন হলো তামিমের শেষ পর্যন্ত কী কঠিন শাস্তি হবে? তা নিয়ে ক্রিকেট ও ক্লাব পাড়ায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া। এক পক্ষের কথা, শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে দোষী প্রমাণিত হবেন তামিম। ঘরোয়া ক্রিকেট কিংবা ঢাকা লিগে অন্তত এক ম্যাচ বহিষ্কার করা হবে তাকে। আরেক পক্ষের মত, তামিমের বড়জোর অর্থদণ্ড হবে। কোন ম্যাচ বহিষ্কার করা হবেন না।

কেন হবে না? এর কারণ জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক্লাব পাড়ার একাধিক কর্মকর্তার কথা, তামিমকে ম্যাচ থেকে বসিষ্কার করার সম্ভাবনা খুব কম। তাকে অর্থ জরিমানা করার সম্ভাবনাই বেশি। তাদের যুক্তি, আবাহনী-প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচের ঝুলে থাকা ভাগ্য নির্ধারণের আগে আগেই হয়ত তামিমের শাস্তি হয়ে যাবে। যেহেতু ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম আছে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য, তাই তামিম ম্যাচ বহিষ্কারের খাঁড়ায় ঝুললেই শেষ ম্যাচ খেলতে পারবেন না।

প্রশ্ন উঠেছে, লিগ নির্ধারণী ম্যাচে অধিনায়ক তামিমের মত গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিহার্য্ সদস্যকে বাইরে রেখে খেলতে চাইবে আবাহনী? এখন প্রশ্ন হলো, লিগ ভাগ্য কি শেষ ম্যাচের ওপর নির্ভর করবে? না তার আগের খেলাগুলোতেই ভাগ্য নির্ধারিত হয়ে যাবে? এখনো লিগের জট না খুললেও বুধবার দৃশ্য ও চিত্রপট অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে যেতে পারে।

বুধবার আবাহনীর লড়াই প্রাইম ব্যাংকের বিরুদ্ধে। এই ম্যাচের আগে আবাহনীর পয়েন্ট ১৪ খেলায় ২০ (প্রাইম দোলেশ্বরের সঙ্গে অসমাপ্ত ম্যাচটি ছাড়া)। প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে জিতে গেলে আবাহনীর পয়েন্ট দাঁড়াবে ১৫ খেলায় ২২। আর আবাহনীর ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলা রূপগঞ্জের পয়েন্ট ১৫ খেলায় হবে ২০। তিন নম্বরে থাকা প্রাইম দোলেশ্বরের সংগ্রহ ১৪ খেলায় ১৮।

এখন রূপগঞ্জের হারের বিপরীতে আবাহনী জিতে গেলে আকাশী হলুদ শিবিরের লিগ চ্যাম্পিয়ন হবার পথ প্রশস্ত হয়ে যাবে। তখন আবাহনী ও প্রাইম দোলেশ্বরের অসমাপ্ত ম্যাচটি আকার নেবে লিগ নির্ধারণী লড়াইয়ে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :