রাত ১০:২৯, বুধবার, ২৬শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট / দল গঠন করে তুষ্ট আবাহনী
দল গঠন করে তুষ্ট আবাহনী
এপ্রিল ১০, ২০১৬

আবাহনী ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা জিতেছিল সেই ২০১১ সালে। ভালো প্লেয়ারের অভাবে এরপর দলটির আর শিরোপা জেতা হয়নি। প্লেয়ার্স বাই চয়েজ না থাকায় আবাহনীর মতো এমন সমস্যার সম্মুখীন হয়তো দেশের অনেক ক্লাবকেই হতে হয়েছে।

এমন সমস্যা দূর করতে এবং দেশের প্রতিটি ক্লাবগুলোতে ভালো ক্রিকেটারের খেলার নিশ্চয়তার জন্য ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটের এবারের আসরের আগে তাই প্লেয়ার্স বাই চয়েজের মাধ্যমে প্রতিটি দল লটারির মাধ্যমে প্লেয়ার বেছে নিয়েছে।

সেই ধারাবাহিকতায় দেশের স্বনামধন্য ক্লাব আবাহনীও পিছিয়ে ছিল না। দেশের ঐতিহ্যবাহী এই ক্লাবটি রোববার (১০ এপ্রিল) রাজধানীর স্থানীয় একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত প্লেয়ার্স বাই চয়েজের মাধ্যমে প্লেয়ার বেছে নিয়েছে। যেখানে আছেন; সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, লিটন কুমার দাস, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাজমুল হোসেন শান্ত, তাসকিন আহমেদ, সাকলাইন সজীব, আবুল হাসান রাজু, অভিশেক মিত্র, জুবায়ের হোসেন লিখন, তাপস বৈশ্য, অমিতাভ কুমার নয়ন ও আবু বকর সিদ্দিকির মতো প্রতিশ্রুতিশীল ক্রিকেটাররা।

আর এই ক্রিকেটারদের নিয়েই আবাহনীর দীর্ঘদিনের শিরোপা খরা কাটাতে চাইছেন ক্লাবটির মূখপাত্র ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।

এদিন প্লেয়ার্স বাই চয়েজের পর দল নিয়ে নিজের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন যাবৎ আমরা আবাহনীকে একটি ভাল টিম হিসেবে গঠন করার চেষ্টা করেছি। দীর্ঘদিন আবাহনী টিম চ্যাম্পিয়ন হচ্ছে না। তাই প্লেয়ার্স বাই চয়েজের মধ্য দিয়ে আমাদের একটি সুযোগ ছিল ভালো প্লেয়ারগুলো ডাকার এবং সেই সুযোগ এসেছে, তাই টিমটাকে শক্তিশালী করতে পেরেছি। আমাদের আগে থেকেই প্ল্যান ছিল দলটাকে শক্তিশলি করার। আমরা সেটা পেরেছি।’

এদিন প্লেয়ার্স বাই চয়েজে দল গঠনের সময় আবাহনীর টেবিলে ছিলেন মো: জালাল ইউনুস, ইসমাইল হায়দার মল্লিক, খালেদ মাহমুদ সুজন, আকরাম খান, আউয়াল চৌধুরী বুলু ও শেখ সোহেল যারা সবাই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক। ফলে সঙ্গত কারণে এই প্রশ্ন আসতেই পারে যে, এমন দারুণ একটি ভারসাম্যপূর্ণ দল গঠনে তাঁরা কোন প্রভাব ফেলেছেন কী না।

উত্তরে জালাল ইউনুস জানালেন, ‘আমরা এখানে যারা উপস্থিত ছিলাম তারা সবাই একটি ক্লাবের প্রতিনিধিত্ব করেছি। ফলে আমরা ক্লাবের স্বার্থটাই দেখবো। ক্রিকেট বোর্ডের যে ক্যাটাগরি অনুযায়ী যারা জেলা থেকে আসছে তারা জেলাকে আমরা যারা ক্লাব থেকে এসেছি তারা ক্লাবকে উপস্থাপন করছি। যেহেতু দীর্ঘদিন ধরে আমরা ছ’জন আবাহনি ক্লাবের সঙ্গে জড়িত সেহেতু আমরা সবাই একসাখে এখানে উপস্থিত থেকেছি। এখানে দোষের কিছু নেই, ম্যানুপুলেশনের কোন সুযোগ সেই। এটা প্লেয়ার্স বাই চয়েজ, তাই এরকম কোন সুযোগ নেই অন্তঃত এই লেভেলের ক্রিকেটে।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :