রাত ৪:৫১, সোমবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ Top News / জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতা ২১ এপ্রিল শুরু
জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতা ২১ এপ্রিল শুরু
এপ্রিল ৯, ২০১৬

উত্তাল সাগর। বড় বড় ঢেউ। সাদা চোখে এমন দৃশ্য সবার বুকে কাঁপন তোলে। কিন্তু সেই ঢেউয়ের মধ্যেই অদম্য সার্ফাররা একেঁবেকে চলে। বরং বড় ঢেউ না হলে ঠিক জমে না তাদের কাছে। যত ঢেউ, সার্ফিংয়ের মজা তত। লড়াইটা হয় জম্পেশ। খেলাধুলার জগতে রোমাঞ্চকর এই ইভেন্টের নাম সার্ফিং। বাংলাদেশের প্রোপটে এর চল খুব একটা নেই। টিভিতে বসে আন্তর্জাতিক সব ইভেন্টগুলোই প্রত্য করে সবাই। কিন্তু আশার কথা হলো, বাংলাদেশেও হচ্ছে সার্ফিং চর্চা। পর্যটন নগরী কক্সবাজারের লাবনী পয়েন্টে গত বছর এপ্রিলে অনুষ্ঠিত হয়েছিল প্রথমবারের মতো জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতা। বছর ঘুরে আবারও সমাগত সেই এপ্রিল মাস, যে সময় সাগরের প্রকাণ্ড ঢেউগুলো আছড়ে পড়ে সৈকতে। সার্ফিংয়ের মোম সময়ই এটা। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ব্রাক চিকেন দ্বিতীয় জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতা।
প্রতিযোগিতা উপল্েয গতবারের মতো এবারও বাংলাদেশে এসে পৌছেছেন যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই ভিত্তিক সংগঠন ‘সার্ফিং দ্য নেশন্স (এসটিএন)’ দলের সদস্যরা। যারা প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করবে। এ ল্েয গত শনিবার প্রেস কনফারেন্সের আয়োজন করে বাংলাদেশ সার্ফিং অ্যাসোসিয়েশন। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সার্ফিং অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, সহ-সভাপতি জামাল রানা, সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী রোকন, কোষাধ্য আমিনুল ইসলাম লিটন, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের হেড অব মার্কেটিং এন্ড প্রিন্সিপাল (এনএইচটিটিআই) পারভেজ আহমদ চৌধুরী, ব্রাক চিকেন অ্যান্ড ডেইলি মিল্কের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার সাইফুর রহমান ও সার্ফিং দ্যা নেশন্সের সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে বিএসএ সভাপতি কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি বলেন, গোটা বিশ্বে সার্ফিং খুবই জনপ্রিয় খেলা। বাংলাদেশে নতুন হলেও জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের দুটি সমুদ্র সৈকতে খুব সহজেই সার্ফিং প্রতিযোগিতা আয়োজন করা সম্ভব। বাংলাদেশে খুব তাড়াতাড়ি খেলাটি জনপ্রিয় হয়ে উঠবে বলে আশা করি। ২১ এপ্রিল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করবেন তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। ২৩ এপ্রিল সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক জনাব তৌফিক আহমেদ, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, জেলা পুলিশ সুপার এবং টুরিস্ট পুলিশ এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। প্রতিযোগিতায় বেশকটি প্রতিষ্ঠান স্পন্সর করেছে। এদের মধ্যে রয়েছে, ব্রাক চিকেন (টাইটেল স্পন্সর), নভো এয়ার লিমিটেড (কো স্পন্সর), বাংলাদেশ টুরিজ্যম বোর্ড (টুরিজ্যম পার্টনার), বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন (হসপিটালিটি পার্টনার), ওশেন প্যারাডাইস, বেস্ট ওয়েস্টার্ন হেরিটেজ, নিসর্গ রিসোর্ট (আবাসন পার্টনার), অ্যাকুয়াফিনা, ট্রান্সকম বেভারিজ (বেভারেজ পার্টনার), সেন্ট মার্টিন পরিবহন (ট্রান্সপোর্ট পার্টনার)।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :