রাত ১০:৩২, রবিবার, ২৮শে মে, ২০১৭ ইং
/ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ / তামিমের চোখে এই জয়েরও অনেক গুরুত্ব
তামিমের চোখে এই জয়েরও অনেক গুরুত্ব
মার্চ ৯, ২০১৬

ব্যাটিংয়ে তামিম ইকবাল, বোলিংয়ে তাসকিন-মাশরাফিসহ দলের প্রায় সবাই। দুইয়ের সম্মিলিত অবদানেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ৮ রানে জিতেছে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলার লক্ষ্যটাও উজ্জ্বল হলো এতে। কিন্তু তবু কি একটু খুঁতখুঁতে অনুভূতি থেকে যাচ্ছে না? হল্যান্ডের বিপক্ষে জয়টা তো প্রত্যাশিতই ছিল, কিন্তু সেটি প্রায় শেষ পর্যন্ত এত স্নায়ুচাপে রাখবে?
তবে যা-ই হোক, জয় জয়ই। ম্যাচ শেষে তামিম ইকবালও জানালেন, এই জয়ের গুরুত্ব অনেক দিক দিয়েই বেশি। প্রতিপক্ষ শুধু হল্যান্ড ছিল না; ছিল ক্লান্তি, বিরুদ্ধ কন্ডিশন, আর সেই কন্ডিশনে মানিয়ে নিতে যথেষ্ট সময় না পাওয়া। বাংলাদেশের এই জয় এই সবকিছুর বিপক্ষেই। ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় তামিম বললেন, ‘কন্ডিশনের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার ব্যাপারটি তো ছিলই। মাত্রই বাংলাদেশে গরমে খেলে এলাম। এখানে আবার ভিন্ন পরিস্থিতি। শ্বাস নিতেই যেন সমস্যা হচ্ছিল। তবে আমরা চেষ্টা করেছি সবকিছু একসঙ্গে ঠিকঠাকভাবে করতে। এই জয়টা অবশ্যই টুর্নামেন্টে সামনে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে।’
এই ম্যাচেও ছোট ছোট প্রাপ্তি অনেক। সেই ২০১২ সালের ডিসেম্বরে মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৮৮ করার পর থেকে আর কখনো ফিফটি দেখেনি তামিমের ব্যাট। ৫৮ বলে ৮৩ রানের ইনিংসটি টুর্নামেন্টে পরের অংশে নিশ্চয়ই বাড়তি অনুপ্রেরণা জোগাবে।
রান অবশ্য তিনি পাচ্ছিলেন, তবে সেটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে নয়। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে বেশ ভালো ফর্মে ছিলেন, পাকিস্তান প্রিমিয়ার লিগেও কয়েকটি ফিফটি করেছেন। এই আত্মবিশ্বাসই নাকি তামিমকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তিন বছরের ‘ফিফটি-খরা’কাটাতে সাহায্য করেছে। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে রানে ফিরতে কী করেছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তামিম বললেন, ‘বাড়তি কিছুই করিনি। আসলে আত্মবিশ্বাস ছিল। বিপিএল, পিএসএলে কিছু ভালো ইনিংস ছিল। ব্যাটিং নিয়ে কাজ করেছি, কোচদের সঙ্গেও কথা বলেছি।’
তামিমের ব্যাটিং বাংলাদেশকে বড় স্কোর এনে দিয়েছে। কিন্তু তবুও রান কিছুটা কম হয়ে গেছে বলে মনে করছেন তামিম, ‘উইকেট সহজ ছিল না। ওদের বোলাররাও ভালো বল করেছে। আমরা ১৫ রান কম করেছি।’
শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশকে জয়ের বন্দরে নিয়ে এসেছেন বোলাররাই। মাশরাফি, সাকিব, আল-আমিন বেশ ভালো করেছেন। শেষ দিকে তাসকিন আহমেদ তো অসাধারণ বোলিং করেছেন। তামিমও আলাদা করে বললেন তরুণ পেসারের কথা, ‘আমরাও ভালো বল করেছি। বিশেষত তাসকিন। শেষ দিকে অবিশ্বাস্য বোলিং করেছে। ওটাই জিতিয়ে দিয়েছে।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :