সন্ধ্যা ৬:২৯, সোমবার, ২৪শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ / হেরেই বিশ্বমঞ্চ থেকে বিদায় পাকিস্তানের
হেরেই বিশ্বমঞ্চ থেকে বিদায় পাকিস্তানের
মার্চ ২৫, ২০১৬

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মঞ্চ থেকে বিদায় নিল পাকিস্তান। সুপার টেনের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২১ রানে হেরেছে শহীদ আফ্রিদির দল। মোহালিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ২৬তম ম্যাচটি শুরু হয় বাংলাদেশ সময় সাড়ে তিনটায়। টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়ার দলপতি স্টিভেন স্মিথ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রান সংগ্রহ করে। জবাবে, ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রানে থেমে যায় পাকিস্তান।
টস জিতে আগে ব্যাট করা অজিদের হয়ে ব্যাটিং উদ্বোধন করতে নামেন ইনফর্ম উসমান খাজা এবং টি-টোয়েন্টির এক নম্বর ব্যাটসম্যান অ্যারন ফিঞ্চ। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে উসমান খাজাকে বোল্ড করে ফিরিয়ে দেন ওয়াহাব রিয়াজ। আউট হওয়ার আগে ১৬ বলে ৩টি চার আর একটি ছক্কায় ২১ রান করেন খাজা।
দলীয় ২৮ রানের মাথায় অজি ওপেনার উসমান খাজা বিদায় নিলেও রানের চাকা ঘোরাতে থাকেন অ্যারন ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নার। তবে, ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে ওয়াহাব রিয়াজের দ্বিতীয় শিকারে বিদায় নেন ওয়ার্নার। বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৯ রান।
ইনিংসের অষ্টম ওভারে ১৬ বলে ১৫ রান করা ফিঞ্চকে বোল্ড করেন ইমাদ ওয়াসিম।
ইমাদের দ্বিতীয় শিকারে ইনিংসের ১৪তম ওভারে বিদায় নেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। আহমেদ শেহজাদের হাতে ধরা পড়ার আগে তিনি ১৮ বলে তিনটি চার আর একটি ছক্কা হাঁকিয়ে করেন ৩০ রান। ম্যাক্সওয়েল দলপতি স্মিথের সঙ্গে ৩৮ বলে আরও ৬২ রান যোগ করেন স্কোরবোর্ডে।
চতুর্থ উইকেট পড়ে যাবার পর স্মিথ আর ওয়াটসন জুটি গড়েন। মাত্র ৩৮ বল মোকাবেলা করে এই দুই ব্যাটসম্যান অবিচ্ছিন্ন ৭৪ রান তুলে নেন। স্মিথ ৪৩ বলে ৭টি চারের সাহায্যে ৬১ রান করে অপরাজিত থাকেন। আর ওয়াটসন ব্যাটে ঝড় তুলে ২১ বলে ৪টি চার আর ৩টি ছক্কায় করেন ৪৪ রান।
পাকিস্তানের হয়ে ওয়াহাব রিয়াজ আর ইমাদ ওয়াসিম দুটি করে উইকেট দখল করেন।
১৯৪ রানের টার্গেটে দলের হয়ে ব্যাটিং শুরু করেন শারজিল খান ও আহমেদ শেহজাদ। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে হ্যাজেলউড ফিরিয়ে দেন আহমেদ শেহজাদকে। কোল্টার-নাইলের তালুবন্দি হওয়ার আগে তিনি মাত্র এক রান করেন। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে ফেরেন আরেক ওপেনার শারজিল। জেমস ফকনারের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৩০ রান। ব্যাট হাতে বেশ ভালোই জবাব দেন শারজিল। পাকিস্তানের এই ওপেনার ১৯ বলে ৬টি বাউন্ডারি হাঁকান।
এরপর ৪৫ রানের জুটি গড়েন উমর আকমল এবং খালিদ লতিফ। ইনিংসের ১১তম ওভারে অ্যাডাম জামপা ক্লিন বোল্ড করেন আকমলকে। ২০ বলে তিনটি বাউন্ডারি আর একটি ওভার বাউন্ডারিতে ৩২ রানের ইনিংসটি সাজান আকমল।
আকমলের বিদায়ে উইকেটে এসে ঝড় তোলার ইঙ্গিত দিয়ে মাত্র ৭ বলে দুটি ছক্কায় আফ্রিদি ১৪ রান করেন। তবে, ডাউন দ্য উইকেটে এসে জামপার বলের লাইন মিস করলে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়তে হয় তাকে।
এরপর জুটি গড়েন শোয়েব মালিক ও খালিদ লতিফ। ২৫ বলে ৩৭ রান যোগ করেন তারা। ১৮তম ওভারে ফকনার বোল্ড করেন সেট ব্যাটসম্যান লতিফকে। ৪১ বলে চারটি চার আর একটি ছক্কায় ৪৬ রান করেন লতিফ। পরের বলেই ইমাদ ওয়াসিমকে ফিরিয়ে দেন ফকনার।
শোয়েব মালিক ২০ বলে দুটি করে চার ও ছয়ে ৪০ রান করে অপারজিত থাকেন।
শেষ ওভারে ফকনার ফেরান সরফরাজ আহমেদ ও ওয়াহাব রিয়াজকে। আগের বারের মতো এবারও হ্যাটট্রিক বঞ্চিত হন ফকনার। ইনিংস সর্বোচ্চ ৫ উইকেট দখল করেন ফকনার। দুটি উইকেট নেন জামপা আর একটি উইকেট পান হ্যাজেলউড।
চলতি বিশ্বমঞ্চে এর আগে তিনটি ম্যাচ খেলে পাকিস্তান। শহীদ আফ্রিদির দল প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় নিয়ে শুরু করে বিশ্বকাপের মিশন। তবে, নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে হেরে বসে তারা। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও হারে পাকিস্তান। তাই এ ম্যাচটিতে জয়ের কোনো বিকল্প ছিল না আফ্রিদি বাহিনীর।
অপরদিকে, পাকিস্তানের বিপক্ষে নামার আগে অস্ট্রেলিয়া খেলেছে দুটি ম্যাচ। নিজেদের প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হারে স্টিভেন স্মিথের দল। দ্বিতীয় ম্যাচে টাইগারদের বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয় তুলে নেয় অজিরা। তৃতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে জেতা অস্ট্রেলিয়া শেষ ম্যাচে মাঠে নামবে স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে।
এ ম্যাচের মধ্যদিয়ে অজিদের ওপেনার উসমার খাজা জন্মভূমির বিপক্ষে আন্তর্জাতিক কোনো ম্যাচে মাঠে নামেন। অবসরের ইঙ্গিত দেওয়া পাকিস্তানের দলপতি শহীদ আফ্রিদির এটিই হতে পারে ক্যারিয়ারের শেষ মেগা কোনো ইভেন্ট। অপরদিকে, অজিদের অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসনও জানিয়ে দিয়েছেন বিশ্বকাপের আসর শেষেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন তিনি।
অস্ট্রেলিয়া একাদশ: শেন ওয়াটসন, উসমান খাজা, স্টিভেন স্মিথ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, অ্যারন ফিঞ্চ, জেমস ফকনার, পিটার নেভিল (উইকেটরক্ষক), জস হ্যাজেলউড, নাথান কোল্টার-নাইল, অ্যাডাম জামপা।
পাকিস্তান একাদশ: শারজিল খান, আহমেদ শেহজাদ, খালিদ লতিফ, উমর আকমল, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), শহীদ আফ্রিদি (অধিনায়ক), ইমাদ ওয়াসিম, ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ সামি, মোহাম্মদ আমির।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :