রাত ৯:৩৩, রবিবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ / বিশাল স্কোরের ম্যাচে ইংল্যান্ড জয়ী
বিশাল স্কোরের ম্যাচে ইংল্যান্ড জয়ী
মার্চ ১৮, ২০১৬

মুম্বাইর ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে গতকাল ব্যাটিং তান্ডবের প্রতিযোগিতাই যেন হয়ে গেল। আগে ব্যাটিং করে ঝড় তুলে দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু ৪ উইকেটে ২২৯ রানে বিশাল স্কোর করেও জিততে পারেনি। উল্টো টর্নেডোর আঘাতে পরাজয়ের গ্লানি নিয়ে মাঠ ছাড়ে প্রোটিয়ারা। ইংল্যান্ড ২ বল বাকি থাকতে ৮ উইকেটে প্রয়োজনীয় ২৩০ রান তুলে নেয়। এটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ও টি-টোয়ান্টি ক্রিকেট দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড। ইংলিশ ব্যাটসম্যান জো রুট ৪৪ বলে ঝড়ো ৮৩ রান তুলে দলকে জয় উপহার দেন। আউট হওয়ার আগে তিনি ৬টি বাউন্ডারি ও ৪টি ছক্কা হাঁকান। এছাড়া ওপেনার জ্যসন রয় মাত্র ১৬ বলে ৪৩ রান করেন।
২৩০ রানের বিশাল ল্য। কিন্তু ইংল্যান্ড কোনভাবেই ভয় পায়নি। বরং শুরু থেকেই প্রোটিয়া বোলারদের ওপর টর্নেডো বইয়ে দিতে থাকেন দুই ওপেনার জ্যসন রয় আর আলেক্স হেলস। প্রথম ওভারেই কাগিসো রাবাদাকে ৫ বার বাউন্ডারি ছাড়া করেন ইংলিশ ওপেনাররা। দ্বিতীয় ওভারে ডেল স্টেইনের মত পেসারের ওপর আরও নির্দয় তারা দু’জন। চারটি বাউন্ডারি এবং ১টি ছক্কা। ২৩ রান। ২ ওভারেই ওঠে মোট ৪৪ রান। এরপর আর তাদের এই গতি থামেনি।
England20160318153709
এর আগে এর আগে নির্ধারিত ২০ ওভারে ইংলিশ বোলারদের উড়িয়ে দিয়ে অর্ধশতকের দেখা পান দুই প্রোটিয়া ওপেনার হাশিম আমলা ও কুইন্টন ডি কক। এছাড়া হাফ সেঞ্চুরি করেন অপরাজিত থাকা জেপি ডুমিনি। টস জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ইংলিশ দলপতি ইয়ন মরগান। প্রোটিয়াদের হয়ে ব্যাটিং উদ্বোধন করতে নামেন ডি কক ও হাশিম আমলা। প্রথম ওভার থেকে মাত্র দুই রান তোলেন তারা। এরপরই ডি কক ও আমলার ব্যাটে ঝড় উঠে। পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারে আসে ৮৩ রান। ২৪ বলে ৫২ রান করে ডি কক বিদায় নেন। ২৫ বলে অর্ধশতকের দেখা পান হাশিম আমলা। ৩১ বলে ৭টি চার আর তিনটি ছক্কায় আমলা করেন ৫৮ রান। আর ২৬ বলে অর্ধশতকের দেখা পান জেপি ডুমিনি। শেষ পর্যন্ত ২৮ বলে ৩টি চার আর ৩টি ছক্কায় ৫৪ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। এছাড়া ১২ বলে দুটি করে চার ও ছক্কায় ২৮ রান করে অপরাজিত থাকেন ডেভিড মিলার। ডুমিনি আর মিলার ২৭ বলে ৬০ রানের জুটি গড়ে অবিচ্ছিন্ন থাকেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :