রাত ১১:২৩, বুধবার, ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং
/ অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ / হতে চান সাকিবের মতো ‘এক নম্বর’
হতে চান সাকিবের মতো ‘এক নম্বর’
ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৬

মেহেদী হাসান মিরাজের আজ মন খারাপই থাকার কথা। কথা ছিল মাঠে থাকার, মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে দর্শকপূর্ণ গ্যালারির সামনে যুব বিশ্বকাপের শিরোপার জন্য লড়াই করার। কিন্তু একটা খারাপ দিনের ধাক্কায় সেই স্বপ্নটা পূরণ হয়নি। কিন্তু মন খারাপের মাঝে ব্যক্তিগত অর্জনের পুরস্কারটা পেলেন। তাঁর দল টুর্নামেন্ট সেরা হয়নি। তবে তিনি টুর্নামেন্টের সেরা হয়েছেন। বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও কম গৌরবের নয়। সেটি হাতে নিয়ে মিরাজ বললেন আরও বড় স্বপ্নের কথা।
প্রতিযোগিতার সেরা ক্রিকেটার হওয়ার গৌরবে মিরাজ গর্বিত করলেন দেশকেও। নিজের অর্জন তাঁর স্বপ্নের পরিধিকে করেছে অনেকটাই বড়, তিনি এখন স্বপ্ন দেখেন বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার হওয়ার। যুব বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার—ব্যাপারটার মধ্যেই তো রোমাঞ্চকর ব্যাপার। মিরাজ নিজেও রোমাঞ্চিত। মুখে স্মিত হাসিটা নিয়ে বললেন, ‘আনন্দিত, রোমাঞ্চিত ঠিকই, ভালো করার প্রত্যাশাও ছিল, কিন্তু এতটা হবে ভাবিনি।’
কী অসাধারণই না তিনি খেলেছেন পুরো বিশ্বকাপে। অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন সত্যিকারের ‘কান্ডারি’। ব্যাট হাতে চারটি ফিফটিসহ ৬০.৫ গড়ে করেছেন ২৪২ রান। উইকেট নিয়েছেন ১২টি। দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন সেমিফাইনাল অবধি। কিন্তু ফাইনালটা খেলা হয়নি। দলের লক্ষ্যপূরণ না হওয়ার বেদনাটাও আছেই। কিন্তু তাই বলে একেবারে আশাহতও নন সদা হাস্যোজ্জ্বল এই তরুণ, ‘আমাদের লক্ষ্যটা অনেক বড় ছিল। আমরা বিশ্বকাপ জিততে চেয়েছিলাম। কিন্তু পারিনি। তবে আশা করি ভবিষ্যতে হয়তো আমরা পারব।’
কালই বলেছিলেন তাঁর আগামীর লক্ষ্য বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের জার্সিটা গায়ে চড়ানো। সে লক্ষ্যেই তো তাঁর পথচলা। সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারটা হাতে নিয়েও আবারও বললেন সেই লক্ষ্যের কথা, ‘আমার লক্ষ্য অবশ্যই জাতীয় দলে খেলা। নিজের খেলাটাকে আরও এগিয়ে নেওয়া।’ সঙ্গে আরও একটি স্বপ্ন দেখেন। সেই স্বপ্নটাও খুবই বাস্তব। এবারের যুব বিশ্বকাপে তাঁর অলরাউন্ড নৈপুণ্য তাঁকে এখন স্বপ্ন দেখাচ্ছে এই সত্তাটাকে আরও বিকশিত করার। বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার হওয়ার তাঁর লক্ষ্যটা তাই খুব একটা দূরেরও মনে হয় না।
প্রত্যয়ের সঙ্গেই বললেন, ‘আমি এক নাম্বার অলরাউন্ডার হতে চাই।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :