রাত ৮:১৪, শুক্রবার, ২০শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং
/ Top News / নেপালের অনুপ্ররণা বাংলাদেশের বিপক্ষে সেই জয়
নেপালের অনুপ্ররণা বাংলাদেশের বিপক্ষে সেই জয়
ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৬

যুব ওয়ানডের আন্তর্জাতিক ম্যাচে একবারই বাংলাদেশের মুখোমুখি হয়েছিল নেপাল। সেই ম্যাচে মোহাম্মদ আশরাফুল, আফতাব আহমেদ, নাফিস ইকবালে গড়া দলকে হারিয়ে চমকে দিয়েছিল দলটি। ২০০২ বিশ্বকাপে পাওয়া সেই জয়ই এবার নেপালের অনুপ্রেরণা।
অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের এবারের আসরে আয়ারল্যান্ড, নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়ে ‘ডি’ গ্রুপ থেকে সুপার লিগ কোয়ার্টার-ফাইনাল নিশ্চিত করে নেপাল। ভারতের কাছে শেষ ম্যাচে হেরে নিজেদের গ্রুপে দুই নম্বরে রয়েছে দলটি।
সুপার লিগে নেপালের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ। নিজেদের শেষ ম্যাচে নামিবিয়াকে হারালে মেহেদি হাসানের মিরাজের দল হবে ‘এ’ গ্রুপের সেরা।
স্বাগতিক বাংলাদেশের শক্তি-সামর্থ্য নিয়ে কোনো সংশয় নেই ব্যাটিং অলরাউন্ডার আরিফ শেখের মনে। তবে নেপালের এই তরুণ জানান, তারা উন্মুখ হয়ে আছেন আরেকটি জয়ের আশায়।
“২০০২ বিশ্বকাপের সেই জয়ের কথা মনে আছে আমাদের। সেবার আমরা প্লেট সেমি-ফাইনালে বাংলাদেশকে হারিয়েছিলাম। আমাদের এবারের দলটি আরও ভালো। আমরা এবারও তেমন কিছু করতে মুখিয়ে আছি।”
সেই ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৬ উইকেটে ১৮০ রান করে নেপাল। জবাবে ১৫ বল বাকি থাকতে ১৫৭ রানে অলআউট হয়ে যায় নাফিসের বাংলাদেশ। ২৩ রানের সেই জয় এবার সেমি-ফাইনালে যাওয়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছে আরিফকে।
“একবার যখন বাংলাদেশকে হারিয়েছি, আবার কেন নয়? এর মধ্যে আমরা দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউ জিল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়েছি। আমাদের নিজেদের ওপর আস্থা রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে যে কাউকেই হারাতে পারব।”
রেলপথ সুবিধা রয়েছে জানিয়ে রেলপথ মন্ত্রী মো. মজিবুল হক বলেছেন, দেশের আরও ১৫ জেলাকে রেলের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে।
সোমবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি সানজিদা খানমের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আগামী ২০ বছরে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রেলওয়ের একটি মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে সরকার। উক্ত মহাপরিকল্পনায় অর্ন্তভূক্ত ২৩৫টি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ২ লাখ ৩৩ হাজার ৯৪৪ দশমিক ২১ কোটি টাকা প্রয়োজন হবে। এ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে নতুন ১৫ জেলা রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে। তখন রাজধানী থেকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কভূক্ত সব জেলায় সরাসরি ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব হবে।
মো. সোহরাব উদ্দিনের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশনের প্লাটফর্মে অবৈধ দখলে থাকা দোকানগুলো উচ্ছেদে পদক্ষেপ নেয়া যাচ্ছে না। নিয়মানুযায়ী উচ্ছেদ পরিকল্পনা গ্রহণ করা হলেও হাইকোর্টের স্থিতাবস্থা থাকায় তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। তবে স্থিতাবস্থা প্রত্যাহারের জন্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।
নাজমুল হক প্রধানের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে রেলওয়ের অধীন অব্যবহৃত জমির পরিমাণ ছিল ১৩ হাজার ৬৯৫ দশমিক ৫২ একর। এরমধ্যে ৫ হাজার ৬২৯ দশমিক ৯৬ একর জমি বন্দোবস্ত দেয়া হয়েছে। বাকী জমি পতিত অবস্থায় আছে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :