রাত ১০:৩৬, বৃহস্পতিবার, ২৭শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ এসএ গেমস / জিতলেই সেমিতে বাংলাদেশ
জিতলেই সেমিতে বাংলাদেশ
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৬

স্পোর্টস রিপোর্টার, গোহাটি থেকে : ফুটবলে অনেক দিন ধরে নেই কোন সুখবর। সর্বশেষ ঘরের মাটিতে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনাল থেকেই বিদায় নিতে হয়েছিল স্বাগতিকদের। স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতার কারণে বারবার আন্তর্জাতিক অঙ্গনে হতাশ হতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। এসব ব্যর্থতাকে ভুলেই মঙ্গলবার ভুটানের বিরুদ্ধে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জয় তুলে নিতে মরিয়া লাল-সবুজ জার্সীধারীরা। গোহাটির সাই স্পোর্টস কমপেক্সে স্থানীয় সময় দু’পুর আড়াইটার শুরু হবে দুই দলের এ ফুটবল দ্বৈরথ। ভুটানের বিপক্ষে এক পয়েন্ট পেলেই সেমির পথে অনেকটাই এগিয়ে থাকবে গঞ্জালো মরেনো সানচেজের শিষ্যরা। আর জিততে পারলে তো কোন কথাই নেই, সরাসরি শেষ চারে নাম লেখাবে রেজা-শাহেদ-তপুরা। কারণ ‘বি’ গ্রুপে নেপালের কাছে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছে ভুটান।
এসএ গেমসের গত আসরে ঘরের মাটিতে স্বর্ণ জয় করেছিল বাংলাদেশ। সেই শিরোপা অক্ষুন্ন রাখার লক্ষ্য নিয়েই গত ৪ ফেব্রুয়ারি ভারতের গোহাটিতে আসেন ফুটবলাররা। লক্ষ্য তাদের একটাই-‘জয়’। কিন্তু গোহাটিতে এসে আয়োজকদের অসহযোগিতার কারণে নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে ফুটবল দলকে। হোটেল থেকে প্র্যাকটিস ভেন্যুতে যাওয়ার জন্য প্রথম দু’দিনতো সময় মতো বাসই পাননি তারা। ফুটবলারদের যে হোটেল নামের খুপড়ি ঘরে রাখা হয়েছে, সেখান থেকে প্র্যাকটিস ভেন্যু মালিগাঁও রেলওয়ে স্টেডিয়ামের দূরত্ব প্রায় দশ কিলোমিটার। সোমবারই অনুশীলনের জন্য সময় মতো বাস মিলেছে বাংলাদেশের। পাহার ঘেরা এই মাঠে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই সকাল সাড়ে ৯টা থেকে একটানা দুই ঘন্টা ঘাম ঝড়ালেন লাল-সবুজ প্রতিনিধিরা। অনুশীলনের পুরোটা সময় জুড়েই ফুটবলারদের বেশ নির্ভার মনে হলো। প্রতিপক্ষ ভুটান বলেই কি এতোটা নির্ভার- ‘না আসলে তেমনটা নয়, ফুটবলারদের মানসিকভাবে একটু চাঙ্গা রাখতেই কোচ মরেনো অনুশীলনে এ কৌশলটা অবলম্বন করেন। শিষ্যদের সঙ্গে বন্ধু সূলভ আচরন করেন তিনি’- জানালেন দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু।
নেপালের কাছে ৫-০ গোলে হারা ভুটানকে খুব একটা হালকাভাবে দেখতে নারাজ কোচ গঞ্জালো মরেনো সানচেজ। এ ম্যাচটা ভুটানের জন্য ‘ডু অর ডাই’। তাই তারা ‘মরন কামড়’ দিতে চাইবে। সেটা বেশ ভালো করেই জানা কোচ মরেনোর। তাই শিষ্যরে আগে-ভাগেই সাবধান করেছেন, ‘আমাদের জন্য প্রথম ম্যাচে জয়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জয়ের বিকল্প ছিুই দেখছি না। আমি আমার ছেলেদের মাঠে তারাহুরো করতে নিষেধ করেছি। বল নিয়ন্ত্রন, ম্যাচ নিয়ন্ত্রন এবং প্লেসিং ফুটবল খেলার কৌশল নিয়েই আমরা মাঠে যাবো।’
গ্রুপের দুই প্রতিপক্ষ নেপাল ও ভুটানকে সমান গুরুত্ব দিচ্ছেন মরেনো। তাই সোমবার ভুটানের ভিডিও দেখেছেন। তাদের দূর্বল দিকগুলো খুঁজে বের করেছেন। মঙ্গলবার মাঠে ভুটানের বিরুদ্ধে আক্রমনাত্বক খেলার ছঁক কষেছেন মরেনো, ‘আমি খেলোয়াড়দের সম্পর্কে জানি। আমার সিস্টেম হচ্ছে, এক সঙ্গে খেলো। তড়িঘড়ি করে আক্রমনে গিয়ে অযথা বল ও সময় নষ্ট করো না। দুই স্ট্রাইকার নিয়ে এ ম্যাচ খেলবো ৪-৪-২ ফর্মেশনে। আমি আবারও বলছিÑদলটা ভালো। এখন খেলোয়াড়দের মনোসংযোগ ধরে রাখাটা জরুরী।’
জাতীয় দলের ফুটবলারদের সাম্প্রতিক সময়ের মাদক সেবনের কেলেঙ্কারি বেশ আলোচনার ঝড় তুলেছে ক্রীড়াঙ্গনে। তবে এসএ গেমসের এই দলটিতে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করার মতো কোন ফুটবলার নেই বলেও জানালেন বার্সেলোনায় খেলা এ কোচ।
গত আসরে স্বর্ণী জয়ী দলের একমাত্র সদস্য অধিনায়ক রেজাউল করীম রেজা। সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় দলের টানা ব্যর্থতা ভুলে চলতি এ আসর নিয়েই ভাবতে চান, ‘আমরা যদি এখান থেকে সাফল্য নিয়ে ফিরতি পারি তবে আমাদের বিরুদ্ধে উঠা সকল অভিযোগ ধামাচাপা পরে যাবে। প্রথম ম্যাচ জিতলেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত হবে। আমাদের ফোকাসটা সেদিকেই।’ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিলো বাংলাদেশ। ওই দলের ৯ সদস্য আছেন এসএ গেমসের অনূর্ধ্ব-২৩ দলে। সঙ্গে রুবেল মিয়া, মাসুম মিয়া জনিরা যোগ হওয়াতে বাংলাদেশ দলকে ব্যালেন্সই বলা চলে।
উল্লেখ্য, এসএ গেমসের ‘এ’ গ্রুপে আছে স্বাগতিক ভারত, শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপ। আর গ্রুপ ‘বি’তে বাংলাদেশের সঙ্গী নেপাল ও ভুটান।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :