রাত ৩:১০, মঙ্গলবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
/ এসএ গেমস / জমকালো আয়োজনে শুরু এসএ গেমস
জমকালো আয়োজনে শুরু এসএ গেমস
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৬

কবিরুল ইসলাম, গোহাটি থেকে : দ্বাদশ সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের পর্দা উঠেছে শুক্রবার। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিক খ্যাত এ ক্রীড়া আসরের উদ্বোধন করেন। শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় ইন্ধিরা গান্ধি অ্যাথলেটিক্স কমপ্লেক্সে এ গেমসের পর্দা উন্মোচন করেন তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ভারত অলিম্পিকের সভাপতি এন রামাচন্দ্র, আসামের মূখ্যমন্ত্রী তরুণ গোগই, মেঘালয়ার মূখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমা। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর দেশটির জনপ্রিয় ফুটবলার বাইচুং ভুটিয়া মশাল প্রজ্বলন করেন। সৌরভ গোসাল গেমসে অংশ নেয়া খেলোয়াড়দের শপথ বাক্য পাঠ করান।এরপর বেজে উঠে গেমসের থিম সং ‘এই পৃথিবী এক ক্রীড়াঙ্গন, ক্রীড়া হলো শান্তির প্রাঙ্গন।’
বিকাল পাঁচটার কিছু আগে স্টেডিয়ামে এসে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে ঘিরে পুরো গোহাটিতেই নেয়া হয় বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। চার স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনি পাড় হয়ে দর্শকদের স্টেডিয়ামে প্রবেশ করতে হয়েছে। তবে এ নিরাপত্তা ব্যবস্থা কারো মনে কোনো ক্ষোভের কারণ হয়ে দাঁড়ায়নি। বিকাল সাড়ে চারটার মধ্যেই স্টেডিয়াম কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। বিকাল পাঁচটার কিছু আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে পৌঁছান। আসাম পুলিশের ব্যান্ড ডিসপ্লে শেষে বিকাল পাঁচটায় জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে দ্বাদশ এসএ গেমসের উদ্বোাধনী অনুষ্ঠান শুরু হয়। অতিথিরা আসন গ্রহনের পর একে একে মাঠে আসেন অংশগ্রহনকারী আটটি দলের অ্যথলেট ও অফিসিয়ালরা। প্রথমেই মাঠে আসে আফগানিস্তান দল। এরপরই জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে বাংলাদেশ দলকে মাঠে নিয়ে আসেন সাঁতারু রুবেল রানা। বাংলাদেশের পর ভুটান, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও সর্বশেষ মাঠে প্রবেশ করে স্বাগতিক ভারত।
আট দলের পরিচিতি পর্ব শেষে নরেন্দ্র মোদি তার বক্তব্যে বলেন, ‘আপনাদের সবাইকে ভারতের মাটিতে স্বাগতম। ভারত আতিথেয়তায় বিখ্যাত। আশা করি এবারও সেটার ব্যতয় হবে না।’ তিনি অংশগ্রহনকারী অ্যাথলেটদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘তোমরা সবাই শান্তির জন্য খেলবে। মনকে উজার করে খেলবে। খেলা শান্তির প্রতীক। সীমারেখা বাদ দিলে আমরা সবাই একই দক্ষিণ এশিয়ার। দক্ষিণ এশিয়াই হচ্ছে আমাদের ঘর।’
আগামী বছর অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজন করতে যাচ্ছে ভারত। বিশ্বকাপের গুরুত্বপূর্ণ একটি খেলা গোহাটিতে আয়োজনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে মোদি বলেন, গোহাটির যুবকরা তোমরা ফুটবল খেলা দেখা মিস করবে না। ২০১৭ যুব বিশ্বকাপের জনপ্রিয় একটি ম্যাচের ভেন্যু করা হবে এ গোহাটিকে।’ পরিশেষে তিনি এবারের আসরের সাফল্য কামনা করেন। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন ঘোষণার পর মশাল প্রজ্জ্বলন করেন ভারতের জনপ্রিয় ফুটবলার বাইচুং ভুটিয়া। আর অ্যাথলেটদের শপথ বাক্য পাঠ করান সৌরভ গোসাল।
এরপর শুরু হয়ে যায় গেমসের মূল আকর্ষণ মনোরম ডিসপ্লে। ডিসপ্লেতে ভারতের ইতিহাস-ঐতিহ্য, আয়োজক রাজ্য আসাম ও মেঘালয়ের ইতিহাস, কৃষ্টি, সংস্কৃতি তুলে ধরেন শিল্পীরা। তাদের মনোমুগ্ধকর পারফর্মেন্সের সঙ্গে লাল-নীল আলোর নাচন অভিভূত করে উপস্থিত সবাইকে। আর উপমহাদেশের প্রয়াত জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ভুপেন হাজারিকার ছেলে ময়ুগ হাজারিকার গাওয়া গেমসের থিম সংটি আলাদা একটা আমেজ তৈরি করেছিল দর্শকদের মনে। নানা আয়োজন শেষে সাড়েটায় শেষ হয় দ্বাদশ আসরের উদ্বোধন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :