রাত ৯:৪৬, শনিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ / আমরা চাপের মুখেই ভালো খেলি: মিরাজ
আমরা চাপের মুখেই ভালো খেলি: মিরাজ
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৬

যুব বিশ্বকাপে এতোদিন পর্যন্ত বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সাফল্য ছিলো কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্তই। ২০০৬, ২০০৮ ও ২০১০ যুব বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত গিয়েছিলো বাংলাদেশ। তবে শুক্রবার ম্যাচের পরিস্থিতি যেমন ছিলো; তাতে করে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছিল।
হাফ সেঞ্চুরির করে মিরাজের উদযাপন
তবে ওই চাপ থেকে দলকে টেনে তুলেছেন দলের অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ ও উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান জাকির হাসান। শেষ পর্যন্ত ১১৭ রানের জুটি গড়ে দলকে ৬ উইকেট জয় উপহার দেন তারা দুইজন। শুধু জয়ই না, প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে বাংলাদেশ।
দলকে সেমিফাইনালে উঠায় স্বস্তিতে মেহেদী হাসান মিরাজ। শুক্রবার ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে তিনি এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘খুব ভালো লাগছে, আমরা প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠেছি। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে আমাদের প্রথম পরিকল্পনাই ছিল সেমিফাইনাল খেলার। আমাদের সবার ভেতর বিশ্বাস ছিল। এজন্যই এমন অর্জন করতে পেরেছি। আমরা কিন্তু চাপেই ভালো খেলি।’
টুর্নামেন্টে ওপেনিং জুটি আগের তিন ম্যাচের মতো ব্যর্থ কোয়ার্টার ফাইনালেও। বিষয়টি নিয়ে মিরাজ এদিনও বললেন একই কথা। তিনি বলেন, ‘আমাদের পরিকল্পনা ছিল ১০ ওভার দেখে শুনে ব্যাটিং করা। রান যাই হোক না কেন উইকেট দেওয়া যাবে না। তবে সামনের ম্যাচগুলোয় আশা করি ভালো হবে।’
চলতি বিশ্বকাপে বাংলাদেশর ওপেনিং জুটি ব্যর্থ হলেও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরাই ম্যাচ জিতিয়েছেন। মিরাজ বলেন, ‘আমাদের শেষের দিকের ব্যাটসম্যানরা খুবই ভালো। উইকেট হাতে রেখে আমরা শেষের দিকে অনেক ভালো খেলতে পারি; সেটার প্রমাণ কিন্তু আজ হয়েছে। আমি আর জাকির যখন খেলছিলাম, শেষের দিকে ১০ ওভারে ৭০ রানের মতো লাগত, তারপরও আমরা কিন্তু ১০ বল আগেই ম্যাচ জিতেছি।’
রান আউটের ব্যাখা দিতে গিয়ে মিরাজ বলেছেন, ‘এখানে মাঠ একটু অন্যরকম। অনেক সময় বোঝ যায় না। আমরা হয়ত ডিফেন্স করলাম, বল গ্যাপে গেল কি গেল না, ঠিক বোঝা যায় না। এমনিতে আমাদের বোঝাপড়া খুব ভালো। একটা-দুটি ম্যাচে এমন হতেই পারে। সবমিলিয়ে এটা বড় সমস্যা বলে মনে হয় না আমার কাছে।’
অধিনায়ক হিসেবে সাফল্য কিভাবে উপভোগ করেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে আমি সবসময় দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে চাই। দল যেন সবসময় ভালো করে এবং আমি যেন তাতে অবদান রাখি। আমি কখনও চাপ নেই না। উপভোগ করি সবসময়। দলের সবাই আমাকে খুব সাহায্য করে, সবাই খুব ভালো।’
বোলারদের প্রশংসা করতে গিয়ে মিরাজ বলেন, ‘আমাদের বোলাররা খুব ভালো বল করেছে। বিশেষ করে সাইফুদ্দিন খুব ভালো ইয়র্কার করতে পারে। এছাড়া শান্ত দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ে দুটি রান আউট করেছে। তাতে করেই ম্যাচ আমাদের পক্ষে চলে আসে।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :