রাত ১:০৯, মঙ্গলবার, ২৬শে জুন, ২০১৭ ইং
/ ফুটবল / গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ
গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ
জানুয়ারি ১৫, ২০১৬

আগের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার জয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের সেমি-ফাইনাল আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশের। নেপালের সঙ্গে গোলশূন্য ড্রয়ে ‘এ’ গ্রুপের সেরাও হলো মারুফুল হকের দল।
বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুক্রবার প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়াকে শ্রীলঙ্কা হারানোয় বাংলাদেশ ও নেপাল পেয়ে যায় সেরা চারে খেলার টিকেট। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচটি ছিল তাই গ্রুপ সেরা হয়ে সেমি-ফাইনালে ওঠার লড়াই। তিন ম্যাচে সমান পাঁচ করে পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্যে এগিয়ে থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলো মামুনুলরা; রানার্সআপ নেপাল।
ফরোয়ার্ড জাহিদ হাসান এমিলি ও মিডফিল্ডার জাহিদ হোসেনকে ছাড়া খেলতে নামা বাংলাদেশ শুরু থেকে ছিল আক্রমণাত্মক। গোলের একাধিক সুযোগও তৈরি করে স্বাগতিকরা। কিন্তু শাখাওয়াত হোসেন রনি, হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাসদের ভুলে তা কাজে লাগানো যায়নি।
দ্বাদশ মিনিটেই প্রথমার্ধে এগিয়ে যাওয়ার সেরা সুযোগটি নষ্ট করেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই গোল করা রনি। বল পায়ে দ্রুত বক্সে ঢুকে নেপাল গোলরক্ষকের গায়ে শট নেন শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের এই ফরোয়ার্ড। ম্যাচের বাকিটা সময়েও ব্যর্থতা পিছু ছাড়েনি রনির।
২২তম মিনিটে স্বাগতিকদের আরেকটি সুযোগ নষ্ট হয় হেমন্তের ভুলে। বক্সের মধ্যে ফাঁকায় থাকা রনিকে বল না বাড়িয়ে এই মিডফিল্ডার নিজেই শট নেন। দুর্বল শট গ্লাভসবন্দি করতে কোনো সমস্যাই হয়নি বিকাশ কুথুর। এক মিনিট পর বাংলাদেশ অধিনায়ক মামুনুল ইসলামের কর্নারও ফিস্ট করে ফেরান অতিথি দলের এই গোলরক্ষক। বক্সের জটলার মধ্যে জামাল ভূইয়ার শট নাবীব নেওয়াজ জীবনের পায়ে লেগে দিক বদলে নেপালের পোস্টের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে গেলে গোলশূন্যভাবে শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।
দ্বিতীয়ার্ধে শুরুতে গুছিয়ে ওঠা নেপাল আক্রমণে যায়। ৫৭তম মিনিটে ডান দিক থেকে হেমন্তের বাড়ানো বলে বক্সের মধ্যে গিয়েও নিয়ন্ত্রণে নিতে পারেননি রনি। ফরোয়ার্ড জীবনকে তুলে নিয়ে মিডফিল্ডার সোহেল রানাকে নামান বাংলাদেশ কোচ। তাতে বলের নিয়ন্ত্রণ স্বাগতিকদের পায়ে থাকলেও গোলের দেখা মেলেনি। ৮৩তম মিনিটে মোনায়েম রাজুর লম্বা করে বাড়ানো বলে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে তাড়াহুড়ো করে পোস্টের ওপর দিয়ে উড়িয়ে মারেন রনি। গোলের আশায় হেমন্তকে তুলে নিয়ে ফরোয়ার্ড জুয়েল রানাকে নামান স্বাগতিক কোচ। এরপর থ্রু বলে জামালের গতিময় শট সরাসরি নেপাল গোলরক্ষকের কাছে যায়।
বক্সের বাইরে থেকে মামনুলের নেওয়া ফ্রি-কিক গ্যালারিতে আসা সমর্থকদের হতাশ করে পোস্টের উপর দিয়ে উড়ে গেলে গোলশূন্যভাবেই শেষ হয় ম্যাচ।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :