বিকাল ৪:৫৮, বুধবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং

এক নজরে

সান্তোস থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার প্রক্রিয়ায় জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগে নেইমার, বার্সা ও ব্রাজিলিয়ান এই তারকার বাবার কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা চালানোর আদেশ দিয়েছে স্পেনের হাইকোর্ট। ফলে আবারো আদালতে যেতে হচ্ছে ব্রাজিল ও বার্সার এই তারকাকে।

এদিকে সান্তোস, নেইমারের মা ও ২৫ বছর বয়সী তারকার বাবার পরিচালিত কোম্পানিকেও মামলা লড়তে হবে। তারা কেউই আদালতের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবে না।

এছাড়া নেইমারের দুই বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও প্রায় ৯৩ লাখ ইউরো জরিমানার শাস্তি চাওয়া হয়েছে। অবশ্য দোষী প্রমাণিত হলেও নেইমারকে হয়তো জেলে জেতে হবে না। স্পেনের আইন অনুযায়ী, সহিংস অপরাধ না করলে সাধারণত দুই বছরের নিচে সাজার ক্ষেত্রে জেলে যেতে হয় না। প্রসিকিউটররা বার্সেলোনারও প্রায় ৮৫ লাখ ইউরো ও সান্তোসকে ৬৫ লাখ ইউরো জরিমানার শাস্তি চেয়েছে।

গত জুলাইয়ে স্প্যানিশ আদালত নেইমারকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছিলেন আদালত। তবে স্পোর্টস ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ডিআইসের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার নেইমারের বিপক্ষে মামলা পুনরুজ্জীবিত করেন আদালত। প্রতিষ্ঠানটি ও তাদের আইনজীবীদের অভিযোগ, ট্রান্সফারের মূল অংক গোপন করায় প্রাপ্য হিস্যা পায়নি ডিআইএস।

ফাইনালের উপযোগী নয় ১২ কোটি টাকার কমপ্লেক্স!

রোলবল বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে ১১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে পল্টন ময়দানে নির্মাণ করা হয়েছে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স। এ বিশ্বকাপের মূল ভেন্যুও এটি। কিন্তু বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে নির্মিত সেই ভেন্যুই নাকি ফাইনালের উপযোগী নয়। যে কারণে প্রধান ভেন্যুটির পরিবর্তে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল, কোয়ার্টার ফাইনাল এবং ফাইনাল সব খেলাই মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে।

শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে হতে পারেনি উদ্বোধনী ম্যাচও। তাড়াহুড়া করে নির্মিত এ কমপ্লেক্সের ফ্লোর খেলার উপযোগি ছিল না বিধায় হংকংয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের উদ্বোধনী ম্যাচটি সরিয়ে নিতে হয়েছিল হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে। পরে জোড়াতালি দিয়ে এখানে কিছু ম্যাচ আয়োজন করা হলেও কমপ্লেক্সটি সেমিফাইনাল-ফাইনাল আয়োজন করার মতো নয়। যে কারণে বিশ্বকাপের টেকনিক্যাল কমিটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচগুলো মিরপুর ইনডোরে আয়োজন করতে বলেছে।

টেকনিক্যাল কমিটি যে ফাইনাল শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সের পরিবর্তে মিরপুর ইনডোরে করতে বলেছে তা স্বীকারও করেছেন বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আসিফুল হাসান ‘টেকনিক্যাল কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই আমরা ফাইনাল মিরপুর ইনডোরে আয়োজন করছি।’

তবে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স ফাইনালের অনুপযোগী তা মানতে রাজী নন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ‘কেউ যদি এমন কথা বলে থাকে তাহলে ঠিক বলেনি। কারণ আমরা নিরাপত্তাজনিত কারণেই মিরপুরকে বেছে নিয়েছি। নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত সংস্থাগুলো যেভাবে বলছে আমরা সেভাবে করছি। এখানে কেনো উনিশ-বিশ হলে সমস্যায় পড়ে যাবো আমরা। তাই আমরা কোনো দায়-দায়িত্ব চাচ্ছি না। নিরাপত্তাজনিত কারণেই সেমিফাইনাল ও ফাইনাল মিরপুরে হচ্ছে।’

ক্রিকেট

বড় লিড নিয়ে দিন শেষ মধ্যাঞ্চলের

মোহাম্মদ শরীফের অলরাউন্ড নৈপণ্যের সঙ্গে মার্শাল আইয়ুবের অর্ধশতের উপর ভর করে শক্তিশালী অবস্থানে আছে মধ্যাঞ্চল। তৃতীয় দিন শেষে পূর্বাঞ্চলের চেয়ে ৩৮৩ রানে এগিয়ে আছে ওয়াল্টন মধ্যাঞ্চল।

মঙ্গলবার ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলি স্টেডিয়ামে মোহাম্মদ শরীফের তোপে আগের দিনের ১১৪ রানে ৬ উইকেট হারানো পূর্বাঞ্চল টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হলেও লোয়ার অর্ডারে আবুল হাসান ও ইয়াসির আলির ব্যাটিংয়ে ২১১ রান তুলতে সক্ষম হয়। মধ্যাঞ্চলের মোহাম্মাদ শরীফ ব্যাট হাতে ঝলক দেখানোর পর বল হাতে চার উইকেট তুলে নেন। এছাড়া শুভাগত ও মোশারফ রুবেল দুইটি করে উইকেট নেন।

এদিকে ১১৭ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুটা ভালো হয়নি মধ্যাঞ্চলের। শুরুতেই বিদায় নেন সাইফ হাসান। দ্বিতীয় উইকেটে ৪১ রানের জুটি গড়েন আব্দুল মজিদ ও মেহরাব জুনিয়র। এরপর এ দুইজন বিদায় নিলেও মার্শাল আইয়ুবের ৭৩ ও তাইবুরের ৫৫ রানের উপর ভর করে তৃতীয় দিন শেষে পাঁচ উইকেটে ২৬৬ রান করে মধ্যাঞ্চল। তাইবুর রহমান ৫৫ ও নুরুল হাসান সোহান ৩২ রানে অপরাজিত আছেন। ৩৮৩ রানে এগিয়ে থেকে শেষ দিনের লড়াই নামবে মধ্যাঞ্চল।

ফুটবল

আবারো আদালতে নেইমার-বার্সা

সান্তোস থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার প্রক্রিয়ায় জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগে নেইমার, বার্সা ও ব্রাজিলিয়ান এই তারকার বাবার কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা চালানোর আদেশ দিয়েছে স্পেনের হাইকোর্ট। ফলে আবারো আদালতে যেতে হচ্ছে ব্রাজিল ও বার্সার এই তারকাকে।

এদিকে সান্তোস, নেইমারের মা ও ২৫ বছর বয়সী তারকার বাবার পরিচালিত কোম্পানিকেও মামলা লড়তে হবে। তারা কেউই আদালতের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবে না।

এছাড়া নেইমারের দুই বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও প্রায় ৯৩ লাখ ইউরো জরিমানার শাস্তি চাওয়া হয়েছে। অবশ্য দোষী প্রমাণিত হলেও নেইমারকে হয়তো জেলে জেতে হবে না। স্পেনের আইন অনুযায়ী, সহিংস অপরাধ না করলে সাধারণত দুই বছরের নিচে সাজার ক্ষেত্রে জেলে যেতে হয় না। প্রসিকিউটররা বার্সেলোনারও প্রায় ৮৫ লাখ ইউরো ও সান্তোসকে ৬৫ লাখ ইউরো জরিমানার শাস্তি চেয়েছে।

গত জুলাইয়ে স্প্যানিশ আদালত নেইমারকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছিলেন আদালত। তবে স্পোর্টস ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড ডিআইসের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার নেইমারের বিপক্ষে মামলা পুনরুজ্জীবিত করেন আদালত। প্রতিষ্ঠানটি ও তাদের আইনজীবীদের অভিযোগ, ট্রান্সফারের মূল অংক গোপন করায় প্রাপ্য হিস্যা পায়নি ডিআইএস।

ফেইসবুক

গলফ
দাবা
লন-টেনিস
হকি
হ্যান্ডবল
আর্ন্তজাতিক
সাক্ষাৎকার
সাঁতার
এ্যাথলেটিকস্